অ্যাপলের বিরুদ্ধে ইইউ এর অভিযোগ দায়ের

14

মার্কিন প্রযুক্তি জায়ান্ট অ্যাপলের বিরুদ্ধে পাল্টা প্রতিযোগিতামূলক অ্যাপ নীতি নেওয়ার অভিযোগ দায়ের করেছে ইউরোপিয়ান কমিশন। তারা বলছে, অ্যাপল যেভাবে অ্যাপ স্টোর পরিচালনা করে, তাতে ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) প্রতিযোগিতা নীতিমালার লঙ্ঘন করা হয়েছে। বিবিসি অনলাইনের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়।

ইউরোপীয় কমিশনের অ্যান্টি-ট্রাস্ট নিয়ন্ত্রক মারগ্রেথ ভেস্টেগার এক টুইটে বলেছেন, অ্যাপল এভাবে অ্যাপ স্টোর পরিচালনা করায় “ভোক্তারা সুবিধা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন।” দুই বছর আগে স্পটিফাইয়ের করা অভিযোগের সঙ্গে সংশ্লিষ্টতা রয়েছে সাম্প্রতিক অভিযোগের।

যুক্তিতর্ক দিয়ে নিয়ন্ত্রকদের মন গলাতে না পারলে বড় মাপের জরিমানার মুখে পড়তে হতে পারে অ্যাপলকে এবং প্রতিষ্ঠানটিকে নিজেদের নীতিমালাও বদলে ফেলতে হতে পারে বলে উঠে এসেছে বিবিসি’র প্রতিবেদনে।

অ্যাপ স্টোরের নীতিমালা কীভাবে মিউজিক স্ট্রিমিংয়ে প্রভাব ফেলছে, তা সুনির্দিষ্টভাবে খতিয়ে দেখা হবে মামলাটিতে। প্রাথমিকভাবে ২০১৯ সালে মামলাটি দায়ের করেছিলেন স্পটিফাইয়ের সহপ্রতিষ্ঠাতা ড্যানিয়েল এক। তিনি দাবি করেছিলেন, ‘অ্যাপল বেছে নেওয়ার সুযোগ সীমিত করছে এবং উদ্ভাবনের কণ্ঠরোধ করছে।’

ইউরোপিয়ান কমিশন এক বিবৃতিতে জানায়, প্রতিযোগী সংগীত স্ট্রিমিং অ্যাপ নিয়ে আসা কোম্পানিগুলোর ব্যয় বাড়িয়ে বাজারে প্রতিযোগিতা নীতি বিকৃত করেছে অ্যাপল। এর ফলে আইওএস ডিভাইসের ভোক্তাদের ইন-অ্যাপ মিউজিক সাবস্ক্রিপশনের খরচ বাড়ছে।

প্রতিক্রিয়ায় অ্যাপল জানিয়েছে, ৯৯ শতাংশ স্পটিফাই সাবস্ক্রাইবারের বেলায় তারা কোনো কমিশন পায়নি। এক বিবৃতিতে তারা জানায়, এই মামলার মূল হলো স্পটিফাইয়ের দাবি করছে, তারা তাদের আইওএস অ্যাপ্লিকেশনে বিকল্প ব্যবসায়ের বিজ্ঞাপন দিতে চায়। এমন অনুশীলন যা বিশ্বের কোনো স্টোরই অনুমতি দেয় না।

অ্যাপ স্টোর প্রশ্নে ইউরোপীয় কমিশন এবং যুক্তরাষ্ট্রের নিয়ন্ত্রকদের কয়েকটি তদন্ত চলছে অ্যাপলের বিরুদ্ধে। তারা খতিয়ে দেখছে অ্যাপলের ৩০ শতাংশ কমিশন নেওয়া যৌক্তিক কি না। ডেভেলপাররাও ‘অ্যাপল ট্যাক্স’ এর বিষয়টি নিয়ে ক্ষুব্ধ।

নিয়ন্ত্রক এবং ডেভেলপারদের চাপের মুখে পড়ে অ্যাপল এরই মধ্যে নিজেদের কমিশন মাত্রায় পরিবর্তন এনেছে। যে ডেভেলপাররা বার্ষিক দশ লাখ পাউন্ডের কম আয় করেন, তাদের অ্যাপ স্টোর ফি ১৫ শতাংশে নামিয়ে এনেছে প্রতিষ্ঠানটি।

এপিক গেইমসের সঙ্গেও এ বিষয়টি নিয়ে বিতণ্ডতা চলছে অ্যাপলের। এ নিয়ে আদালতের শরণাপন্ন হয়েছে এপিক গেইমস, এবং অ্যাপল তাদের ফোর্টনাইট গেইমটিকে প্ল্যাটফর্ম থেকে সরিয়ে দিয়েছে।

নিউজ হান্ট/ইস

পূর্ববর্তী নিবন্ধলঙ্কা জয় করতে টাইগারদের গড়তে হবে বিশ্বরেকর্ড
পরবর্তী নিবন্ধমূল পদ্মা সেতুর নির্মাণ কাজ ৯৩.২৫ ভাগ শেষ হয়েছে: কাদের