ইউপি সদস্যের বিরুদ্ধে স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ

14

চিতলমারী (বাগেরহাট) থেকে বিভাষ দাস: বাগেরহাটের চিতলমারীতে করোনাকালীন ত্রাণ সামগ্রী দেয়ার কথা বলে এক স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে ননী গোপাল বিশ্বাস নামের এক ইউনিয়ন পরিষদ সদস্যের বিরুদ্ধে। এ ঘটনার পর ওই ছাত্রী আত্মহত্যা করতে গেলে বিষয়টি জানাজানি হয় এবং তার পরিবার পুলিশকে খবর দেয়।

গত রবিবার সকল ১১টার দিকে পাঁচপাড়া গ্রামে মেয়ের বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে।

অভিযুক্ত ননী গোপাল বিশ্বাস (৪৫) উপজেলার ৬ নং চরবানিয়ারী ইউনিয়ন পরিষদের ৯ নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য এবং একই ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক। ননী পাঁচপাড়া গ্রামের রণজিৎ বিশ্বাসের ছেলে। ধর্ষণের শিকার ওই মেয়ে স্থানীয় মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ষষ্ঠ শ্রেণীর ছাত্রী।

ওই ছাত্রীর পিতা বলেন, রবিবার সকাল সাড়ে ১০ টার দিকে ননী মেম্বার বাড়িতে এসে করোনাকালীন সাহায্য দেয়ার কথা বলে আমার ভোটার আইডি কার্ডের ফটোকপি ও মোবাইল নাম্বার নিয়ে যায়। এরপর আমি ও আমার স্ত্রী কাজের জন্য বাইরে যাই। ঘণ্টা খানেক পরে বাড়ি ফিরে আমার স্ত্রী দেখে ঘরের আড়ায় ওড়না দিয়ে মেয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা চালাচ্ছে। মেয়েকে জিজ্ঞাসা করলে সে জানায়, বাড়িতে কেউ না থাকার সুযোগে ননী গোপাল বিশ্বাস ফিরে এসে তাকে জোর পূর্বক ধর্ষণ করে চলে যায়। তাই সে আত্মহত্যা করতে যাচ্ছিল।

এ বিষয়ে ইউপি সদস্য ননী গোপাল বিশ্বাসের কোনো বক্তব্য পাওয়া যায়নি। তিনি বাড়িতে নেই তার ফোন নম্বরও বন্ধ রয়েছে।

চিতলমারী থানার ওসি (তদন্ত) মো. ইকরাম হোসেন জানান, ভিকটিমের বাড়িতে গিয়ে ধর্ষণের আলামত সংগ্রহ করা হয়েছে। স্কুল ছাত্রীর পিতা বাদী হয়ে এক জনকে আসামি করে থানায় একটি ধর্ষণ মামলা দায়ের করেছে। আসামি গ্রেপ্তারের জন্য পুলিশ তৎপর রয়েছে।

নিউজ হান্ট/কেএইচ

পূর্ববর্তী নিবন্ধ৪৫ বিলিয়ন ডলার ছাড়ালো রিজার্ভ
পরবর্তী নিবন্ধশেয়ারবাজারের উন্নয়নে ২০ হাজার কোটির টাকার তহবিল