একদিনে করোনা শনাক্তের সর্বোচ্চ রেকর্ড, মৃত্যু ৪৫

14

দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় নভেল করোনাভাইরাসে (কোভিড-১৯) নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ৫১৮১ জন। করোনা শনাক্ত হওয়ার পর দেশে একদিনে এটি সর্বোচ্চ শনাক্তের রেকর্ড। গত বছরের জুলাইয়ে একদিনে সর্বোচ্চ ৪ হাজার ১৯ জন করোনায় শনাক্ত হয়েছিলেন। এ নিয়ে দেশে করোনায় শনাক্তের সংখ্যা দাঁড়ালো ৬ লাখ ৮৯৫ জন।

এছাড়া গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আক্রান্ত হয়ে ৪৫ জনের মৃত্যু হয়েছে। যা গত ৭ মাসের মধ্যে মৃত্যুর সর্বোচ্চ রেকর্ড। এ নিয়ে করোনায় দেশে ৮ হাজার ৯৪৯ জনের প্রাণহানি হলো।

সোমবার (২৯ মার্চ), করোনা পরিস্থিতি নিয়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে পাঠানো বিজ্ঞপ্তিতে এ সকল তথ্য জানানো হয়। বিজ্ঞপ্তিতে প্রাপ্ত তথ্যমতে, গত ২৪ ঘণ্টায় সারা দেশে নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে ২৮ হাজার ৬৮৮টি। আর দেশের মোট ২২৪টি ল্যাবে অ্যান্টিজেন টেস্টসহ নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে ২৮,১৯৫টি। এর মধ্যে ৫,১৮১ জনের দেহে করোনার উপস্থিতি পাওয়া গেছে। যেখানে পরীক্ষা বিবেচনায় শনাক্তের হার ১৮.৩৮ শতাংশ। এ পর্যন্ত মোট নমুনা পরীক্ষা হয়েছে ৪৬ লাখ ১৭ হাজার ২৫টি। এ পর্যন্ত পরীক্ষা বিবেচনায় শনাক্তের হার ১৩.০১ শতাংশ।

বিজ্ঞপ্তিতে আরো জানানো হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় মারা যাওয়া ৪৫ জনের মধ্যে ৩০ জন পুরুষ ও ১৫ জন নারী। শনাক্ত বিবেচনায় মৃত্যুর হার ১.৪৯ শতাংশ। এ পর্যন্ত মৃত্যুবরণ করা ৮,৯৪৯ জনের মধ্যে ৬ হাজার ৭৪৬ জন পুরুষ ও ২,২০৩ জন নারী। আর গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন আরো ২,০৭৭ জন। শনাক্ত বিবেচনায় সুস্থতার হার ৮৯.৫৪ শতাংশ। এ নিয়ে মোট সুস্থ রোগীর সংখ্যা দাঁড়ালো ৫ লাখ ৩৮ হাজার ১৮ জন।

২০১৯ সালের ডিসেম্বরে চীনে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ নিশ্চিত হওয়া গেলেও বাংলাদেশে ভাইরাসটি শনাক্ত হয় গত বছরের ৮ মার্চ। ওইদিন তিনজন করোনা রোগী শনাক্ত হওয়ার কথা জানিয়েছিলো স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। করোনায় মৃত্যুর হার শুরুতে বৃদ্ধি পাওয়ার পর অনেকটাই কমে এসেছিলো সে হার। তবে, আবারো বাড়তে শুরু করেছে মৃতের সংখ্যা। আর গেল বছরের মার্চে সংক্রমণ শুরুর পর জুলাই পর্যন্ত দৈনিক শনাক্ত রোগী বেড়েছে। এরপর থেকে কমতে শুরু করলেও আবারো বেড়েই চলেছে সংক্রমণ হার।

নিউজ হান্ট/আরকে