করের ১০০ টাকার ১৯ টাকাই সরকারি কর্মচারীদের বেতন

5

‘জীবন-জীবিকায় প্রাধান্য দিয়ে সুদৃঢ় আগামীর পথে বাংলাদেশ’ শিরোনামে ২০২১-২০২২ অর্থবছরের  জন্য ৬ লাখ ৩ হাজার ৬৮১ হাজার কোটি টাকার প্রস্তাবিত বাজেট জাতীয় সংসদে উপস্থাপন করা হয়েছে। যা মোট জিডিপির ১৭.৪৭%।

এবারের বাজেটে সর্বাধিক গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে জীবন ও জীবিকা, স্বাস্থ্য সুরক্ষা, কর্মসংস্থান, ব্যবসা-বাণিজ্য, বিনিয়োগ ও কৃষি খাত। বিভিন্ন মন্ত্রণালয় ও বিভাগের সম্পাদিত কাজের শ্রেণিবিন্যাস অনুযায়ী সামগ্রিক ব্যয় কাঠামো (উন্নয়ন ও পরিচালন ব্যয়) তিনটি প্রধান ভাগে ভাগ করা হয়েছে প্রস্তাবিত এই বাজেটে ।

সেগুলি হলো: সামাজিক অবকাঠামো, ভৌত অবকাঠামো ও সাধারণ সেবা খাত।

এদিকে এই বাজেটের মধ্যে ঘাটতি রয়েছে ২ লাখ ১৪ হাজার ৬৮১ কোটি টাকা। ঘাটতি জিডিপির ৬.২%।

ঘাটতি মেটাতে প্রস্তাবিত বাজেটে বিভিন্ন খাতে অতিরিক্ত কর আরোপের সুপারিশ করা হয়েছে। পাশাপাশি রাজস্ব সংগ্রহের জন্য আরও নতুন নতুন খাত খুঁজে বের করার জন্য উৎসাহ দিয়েছেন অর্থমন্ত্রী।

এবারে জেনে নিন আপনার প্রতি ১০০ টাকা কর কোন কোন খাতে কত খরচ হবে।

করের সবচেয়ে বড় অংশ খরচ হবে বিভিন্ন ধরনের সাহায্য মঞ্জুরিতে। প্রতি ১০০ টাকা করের ১৯.১ টাকা এই খাতে খরচ করা হবে।

এরপর প্রতি ১০০ টাকার ১৯ টাকাই খরচ করা হবে সরকারি কর্মচারিদের বেতন-ভাতা পরিশোধের খাতে। যা করের টাকার দ্বিতীয় শীর্ষ খরচের খাত।

এরপরেই দেশি-বিদেশি ঋণের সুদ পরিশোধ করতে গিয়ে করদাতাদের প্রতি ১০০ টাকায় খরচ করতে হবে ১৮.৭ টাকা।

করের ১২.৬ খরচ হবে বিভিন্ন ধরনের ভতুর্কি ও প্রণোদনায় যা খরচের চতুর্থ বৃহৎ খাত।

এছাড়া পণ্য ও সেবা খাতে ৯.৯ টাকা এবং পেনশন পরিশোধে ৭.৭ টাকা খরচ হবে আপন দেয়া করের ১০০ টাকার থেকে।

বিভিন্ন সম্পদ সংগ্রহ করতে গিয়ে ১০০ টাকার থেকে করের ৫.৯ টাকা খরচ করা হবে।

পাশাপাশি অনুন্নয়ন ব্যয় ৩ টাকা, অপ্রত্যাশিত ব্যয় ও অন্যান্য ২.৮ টাকা এবং বাকী ১.৩ টাকা বিবিধি খাতে খরচ করা হবে।

নিউজ হান্ট/এনএইচ

পূর্ববর্তী নিবন্ধবিদ্যুতের তারে জড়িয়ে প্রাণ গেলো চাচা-ভাতিজার
পরবর্তী নিবন্ধমা হচ্ছেন নুসরাত! ‘সন্তান আমার নয়’ বললেন স্বামী নিখিল