ঘরের মাঠে গ্রানাদায় ধরাশায়ী বার্সেলোনা

12

জিতলেই পয়েন্ট তালিকায় চূড়ায়, শিরোপা সম্ভাবনা হবে জোরালো। স্প্যানিশ লা লিগায় ঘরের মাঠে যে দলটির বিপক্ষে মাঠে নামা মানেই কাতালানদের জয় নিশ্চিত, মৌসুমের গুরুত্বপূর্ণ সময়ে এসে সেই দলটির কাছে হেরে গেল রোনাল্ড কোম্যানের দল। লিওনেল মেসির গোলে বার্সেলোনার শুরুটাও দারুণ হলোও দ্বিতীয়ার্ধে অল্প সময়ে পাল্টা-আক্রমণে দারুণ দুটি গোলে অসাধারণ এক জয় তুলে নেয় গ্রানাদা।

স্প্যানিশ লা লিগায় গ্রানাডার বিপক্ষে সবশেষ ১৯ ম্যাচে ১৭টিই জয় পেয়েছিল বার্সেলোনা। এই সময়ে ১১ ম্যাচই নিজেদের জাল অক্ষত রাখতে পেরেছে কাতালানরা। নিজেদের মাঠে এই পরিসংখ্যান যেন আরো চোখধাঁধানো! ন্যু ক্যাম্পে গ্রানাডার বিপক্ষে লা লিগায় ২৪ ম্যাচের শতভাগ জয় কাতালানদের।

কিন্তু বৃহস্পতিবার ন্যু ক্যাম্পে বার্সেলোনাকে ২-১ গোলে হারিয়েছে গ্রানাডা। শুরুতে দলের সেরা তারকা লিওনেল মেসির গোলে এগিয়ে গেলেও বিরতির পর দু গোল হজম করে তিক্ত হারের স্বাস নিয়েই মাঠ ছাড়ে রোনাল্ড কোম্যানের শিষ্যরা। দ্বিতীয়ার্ধে ডারউইন ম্যাচিস ও জর্জে মলিনা গোল করে কাতালানদের স্বপ্নে বড় ধাক্কা দেয় গ্রানাডা।

ম্যাচের শুরু থেকে  একচেটিয়া রাজত্ব করে কাতালানরা। বল দখল লড়াইয়েও যোজনে যোজনে এগিয়ে ছিল রোনাল্ড কোম্যানের দল।

একের পর এক আক্রমণে গোল পেতে স্বাগতিকদের অপেক্ষা করতে হয় তেইশ মিনিট। ফরাসি ফরোয়ার্ড আতোয়ান গ্রিজম্যানের পাস থেকে বল ধরে বাঁ পায়ের কোনাকুনি শটে গোল করে দলকে এগিয়ে দেন মেসি।

চলতি মৌসুমে লা লিগায় আর্জেন্টাইন অধিনায়কের গোল হল ২৬। রেকর্ড অষ্টমবার পিচিচি ট্রফি জয়ে ছয়বারের বর্ষসেরা ফুটবলারের গোল দুইয়ে থাকা করিম বেনজেমার (২৩) চেয়েও ৩টি বেশি। প্রথমার্ধের বাকি সময় অনেক চেষ্টা করেও আর ব্যবধান বাড়াতে পারেনি স্বাগতিকরা।

দ্বিতীয়ার্ধের প্রথম মিনিটে সামুয়েল উমতিতির কাটব্যাক পেনাল্টি স্পটের কাছে ফাঁকায় পেয়ে লক্ষ্যভ্রষ্ট শট নেন গ্রিজমান।

রক্ষণ জমাট রেখে প্রতি-আক্রমণে সাফল্যের সন্ধানে ছিল গ্রানাদা। ৬৩তম মিনিটে এ কৌশলেই সমতা টানে তারা। মাঝমাঠ থেকে আসা বলে পা লাগিয়েও ঠেকাতে পারেননি অস্কার মিনগেসা। উল্টো তাতে সুবিধা হয় মার্চিসের। গতি কমে আসা বল প্রথম ছোঁয়ায় নিয়ন্ত্রণে নিয়ে ডি-বক্সে ঢুকে জোরালো শটে টের স্টেগেনকে পরাস্ত করেন ভেনেজুয়েলার এই ফরোয়ার্ড।

গোল হজম করায় ডাগআউটে বেশ ক্ষুব্ধ দেখা যায় কুমানকে। খানিক পরেই কোনো এক বিষয়ে মন্তব্য করায় তাকে লাল কার্ড দেখান রেফারি।

পরের মিনিটেই পিছিয়ে পড়ে বার্সেলোনা। বাঁ দিক থেকে আদ্রিয়ান মারিনের ক্রস ডি-বক্সে পেয়ে ঠান্ডা মাথায় একটু নিচু হয়ে কোনাকুনি হেডে স্কোরলাইন ২-১ করেন বদলি নামা ৩৯ বছর বয়সী ফরোয়ার্ড মোলিনা। জায়গা থেকে নড়ার সুযোগ পাননি টের স্টেগেন। রক্ষণেও আশে পাশে দেখা যায়নি কাউকে!

বাকি সময়ে মরিয়া চেষ্টা চালালেও উল্লেখযোগ্য কোনো সুযোগই তৈরি করতে পারেনি বার্সেলোনা। মাঠ ছাড়ে আসরে ষষ্ঠ হারের তেতো স্বাদ নিয়ে।

৩৩ ম্যাচে ২২ জয় ও পাঁচ ড্রয়ে বার্সেলোনার পয়েন্ট ৭১। সমান পয়েন্ট নিয়ে মুখোমুখি লড়াইয়ে এগিয়ে রিয়াল। আতলেতিকোর পয়েন্ট ৭৩।

নিউজ হান্ট/ইস

পূর্ববর্তী নিবন্ধটিভিতে আজকের খেলা
পরবর্তী নিবন্ধসব রেকর্ড ছাড়িয়ে ভারতে একদিনে আক্রান্ত ৩ লাখ ৮৬ হাজার