চিতলমারী উপজেলা চেয়ারম্যানকে জীবননাশের হুমকি

18

চিতলমারী (বাগেরহাট) থেকে বিভাষ দাস: বাগেরহাটের চিতলমারী উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অশোক কুমার বড়ালকে অকথ্য ভাষায় গালাগালি ও হত্যার হুমকি দিয়েছে উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি এস, এম অহিদুজ্জামান খলিফা। এ ঘটনায় চেয়ারম্যান অশোক কুমার বড়াল অহিদসহ চার জনের বিরুদ্ধে থানায় একটি সাধারণ ডায়রি করেছেন।

অশোক কুমার বড়াল জানান, বুধবার খাসেরহাট ও কালিগঞ্জ বাজারের ইজারার দরপত্র জমা দেওয়ার শেষ দিন ছিল। দুপুরে গৌতম নামের এক ছেলে খাসেরহাট বাজারের দরপত্র জমা দিয়ে ইউএনও অফিসের বাইরে গেলেই অহিদুজ্জামান খলিফা তার লোকজন নিয়ে গৌতমকে ধরে মারধর করে। এরপর তাকে উপজেলা আওয়ামী লীগের অফিসে নিয়ে লাঠিসোটা দিয়ে অহিদুজ্জামানসহ যুব মহিলা লীগের সভানেত্রী শিবানী বিশ্বাস, মাসুদ খলিফা ও সুকুমার ঘটক কোদালের হাতল ও বরফ ভাঙ্গা মুগুর দিয়ে বেদম মারপিট করে। এরপর তারা উপজেলায় এসে আমাকে অকথ্য ভাষায় গালাগালি ও জীবন নাশের হুমকি দেয়। এ সময় সদর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান শেখ নিজাম উদ্দীন বাধা দিলে তার উপরেও চড়াও হয়। নিরাপত্তাজনিত কারণে রাতে আমি চিতলমারী থানায় একটি সাধারণ ডায়রি করেছি।

চিতলমারী থানার ওসি মীর শরীফুল হক বলেন, গালাগালি ও জীবন নাশের হুমকির বিষয় নিয়ে উপজেলা চেয়ারম্যান অশোক কুমার বড়াল ১১৯০ নং একটি সাধারণ ডায়রি (জিডি) করেছেন। বিষয়টি প্রয়োজনীয় ব্যবস্থাগ্রহণের জন্য প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

উল্লেখ্য, অশোক কুমার বড়াল চিতলমারী উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান এডভোকেট কালিদাস বড়ালের বড় ভাই। ২০০০ সালের ২০ আগস্ট কালিদাস বড়ালকে বাগেরহাটের সাধনার মোড়ে আততায়ীরা গুলি করে হত্যা করে। কালিদাস বড়ালের স্ত্রী হ্যাপি বড়াল খুলনা-বাগেরহাট সংরক্ষিত ৩১১ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য।

নিউজ হান্ট/কেএইচ