নন্দীগ্রামে আবার নাটক, ফল স্থগিত

46

ভারতের পশ্চিমবঙ্গ বিধানসভা নির্বাচনে নন্দীগ্রাম আসনে ভোটগণনা ঘিরে বিভ্রান্তি। এই বিভ্রান্তির মধ্যে আপাতত ফলাফল ঘোষণা স্থগিত নন্দীগ্রামে। নতুন করে গণনা হতে পারে। এ ব্যাপারে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবেন রিটার্নিং অফিসার। আনন্দবাজার পত্রিকাকে একথা জানিয়েছেন, রাজ্যের প্রধান নির্বাচনী কর্মকর্তা আরিজ আফতাব।

নন্দীগ্রাম নিয়ে চরম বিভ্রান্তি। ১৭ রাউন্ড ভোটগণনার পর তৃণমূল নেত্রী মমতা ব্যানার্জি সেখানে জয়ী হয়েছেন বলে খবর আসছিল। কিন্তু সন্ধ্যা গড়াতে মমতার জয় নিয়ে প্রশ্ন উঠতে শুরু করে। বলা হয়, সার্ভারে সমস্যার জেরে সঠিকভাবে কিছু জানা যাচ্ছে না। তার পরেই ১৬২২ ভোটে শুভেন্দু অধিকারীর জয়ের খবর আসে।

এ নিয়ে যোগাযোগ করা হলে আনন্দবার ডিজিটালকে ফোনে তিনি বলেন, ‘১৬২২ ভোটে জিতেছি আমি।’

যদিও পোস্টাল ব্যালট ছাড়া মমতার সঙ্গে শুভেন্দুর জয়ের ব্যবধান ৯৭৮৭ ভোটের। তার পর সাংবাদিক বৈঠকে নন্দীগ্রামে হেরে গিয়েছেন বলে জানান মমতা।

তিনি বলেন, ‘নন্দীগ্রাম যা রায় দেব, মাথা পেতে নেব।’

তবে এই ঘটনা নিয়ে কমিশনের উপর ক্ষোভও প্রকাশ করেন মমতা। বলেন, ‘নন্দীগ্রামের মানুষের রায় মেনে নিচ্ছি। কিন্তু ওখানে ভোট লুঠ হয়েছে। আদালতে যাব আমরা।’

এর কিছু পরে টুইট করে তৃণমূলের পক্ষে জানানো হয়, নন্দীগ্রামে গণনা এখনও চলছে। কোনো রকম জল্পনায় কান না দেওয়ার জন্যও অনুরোধ করা হয় ওই টুইটে।

পশ্চিমবঙ্গে দৈনিক আনন্দবাজার পত্রিকা জানাচ্ছে, পশ্চিমবঙ্গে তৃণমূল কংগ্রেস ২০৭টি কেন্দ্রে এগিয়ে, বিজেপি ৮১টি কেন্দ্রে এবং বাম জোট মাত্র দুইটি কেন্দ্রে এগিয়ে। এখনো কয়েকটি রাউন্ডের গণনা বাকি। তবে প্রায় অর্ধেকের বেশি রাউন্ডের গণনা হয়ে গেছে। নাটকীয় কোনো বদল না হলে তৃণমূল কংগ্রেস আবার সরকার গঠন করতে চলেছে।

পত্রিকাটি আরও জানায়, তৃণমূল প্রায় পঞ্চাশ শতাংশ ভোট পেয়েছে। বিজেপি পেয়েছে ৩৬ শতাংশ। কংগ্রেস আড়াই ও সিপিএম সাড়ে চার শতাংশ ভোট পেয়েছে।

নিউজ হান্ট/আরকে

পূর্ববর্তী নিবন্ধঅবিশ্বাস্য কিছুর আশায় টাইগাররা
পরবর্তী নিবন্ধগণপরিবহন চালুর দাবিতে রংপুরে মটর শ্রমিক ইউনিয়নের মানববন্ধন