না ফেরার দেশে ভাষা সৈনিক আবুল হোসেন

10

মীর তোফায়েল হোসেন (রাজশাহী ব্যুরো প্রধান): না ফেরার দেশে চলে গেলেন রাজশাহীর ভাষা সৈনিক আবুল হোসেন। বুধবার বিকেল ৪টার দিকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে তিনি মৃত্যুবরণ করেন। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৮৭ বছর। মরহুম আবুল হোসেন তার দুই ছেলে ও এক মেয়েসহ অনেক গুণগ্রাহী রেখে গেছেন। তিনি একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির রাজশাহী জেলা সভাপতি ও সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি ছিলেন।

রামেক হাসপাতালের উপ-পরিচালক ডা. সাইফুল ফেরদৌস জানান, ৪টার দিকে বেসরকারি বারিন্দ্র মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল থেকে ভাষা সৈনিক আব্দুল হোসেনকে রামেক হাসপাতালের জরুরী বিভাগে নেয়া হয়। সেখান থেকে তাকে ৩২ নং ওয়ার্ডে পাঠানো হলে সেখানে পরীক্ষা নিরীক্ষার পর তাকে মৃত ঘোষণা করেন চিকিৎসকরা। হাসপাতালে নেয়ার আগেই তার মৃত্যু হয়।

মরহুমের বড় ছেলে আবুল হাসনাত বিদ্যুত জানান, মা কয়েক বছর আগেই মারা গেছেন আর বাবা বার্ধক্যজনিত কারণে অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে বেসরকারি বারিন্দ্র মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ভর্তি করা হয়। সেখানে তার অবস্থার অবনতি হলে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়।

তিনি জানান, ১৫ দিন থেকে তিনি শারীরিকভাবে অসুস্থ ছিলেন। বাসাতেই চিকিৎসাধীন ছিলেন। বুধবার সকালে শ্বাসকষ্ট দেখা দিলে তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। গত ৯ ফেব্রুয়ারি তাকে করোনার ভ্যাকসিনের প্রথম ডোজ দেয়া হয়।

ভাষা সৈনিক আবুল হোসেনের মৃত্যুতে গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন রাজশাহী সিটি করপোরেশনের মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন। বুধবার এক শোক বার্তায় মেয়র মরহুমের বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা করেন ও তার শোক সন্তপ্ত পরিবারবর্গের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করেন।

শোক বার্তায় মেয়র লিটন বলেন, ১৯৫২ সালের মহান ভাষা আন্দোলনে আবুল হোসেন যে অবদান রেখেছেন, জাতি তা চিরকাল গভীর শ্রদ্ধার সঙ্গে স্মরণ রাখবে। এদিকে, ভাষা সৈনিক আবুল হোসেনের মৃত্যুতে গভীর শোকপ্রকাশ করেছেন বিভিন্ন রাজনৈতিক ও সামাজিক সংগঠন।

বুধবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে নগরের টিকাপাড়া মহানগর ঈদগাহ মাঠে মরহুমের নামাজে জানাজা শেষে টিকাপাড়া কবর স্থানে তার দাফন সম্পন্ন হয়।

নিউজ হান্ট/কেএইচ