প্রস্তাব পেলে সিনেমার নায়ক হতেও রাজি ভিসি কলিমউল্লাহ

8

বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য নাজমুল আহসান কলিমউল্লাহ সম্প্রতি বিভিন্ন কর্মকাণ্ডে আলোচিত-সমালোচিত। ভিসি হিসেবে ১৩ জুন, আনুষ্ঠানিকভাবে তার মেয়াদ শেষ হচ্ছে। এরই মধ্যে ভোর রাতে একটি ক্লাস নিয়ে সমালোচিত ও ট্রলের শিকার হয়েছেন তিনি। এসবের মধ্যেই নাজমুল আহসান কলিমউল্লাহ অভিনীত বাংলা সিনেমার একটি দৃশ্য সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছে।

সিনেমার ওই দৃশ্যে ঢাকা পুলিশ কমিশনারের ভূমিকায় তিনি অভিনয় করেছেন। ভিডিওতে দেখা যায়, পুলিশের একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা শহরের গডফাদারদের ধরার জন্য পুলিশের অনান্য কর্মকর্তাদের নির্দেশ দিচ্ছেন।

একজন উপাচার্য হয়েও সিনেমায় অভিনয় করা নিয়ে অনেকেই নেতিবাচক মন্তব্য করেছেন; পাশাপাশি অনেকে আবার বিষয়টি ইতিবাচকভাবে দেখেছেন। তবে সার্বিক বিষয়টিকে ইতিবাচকভাবে দেখছেন ভিসি নাজমুল আহসান কলিমউল্লাহ।

কলিমউল্লাহ গণমাধ্যমকে বলেন, ফেসবুকে যে ভিডিওটি ভাইরাল হয়েছে, সেই সিনেমায় আমি প্রথম অভিনয় করি। ‘শ্যুটার’ নামের সিনেমাটি ব্যাপক ব্যবসা সফল হয়। সিনেমাটিতে আমি ঢাকার পুলিশ কমিশনারের চরিত্রে অভিনয় করি।

নায়কের চরিত্রে অভিনয় করতে চান কি না, এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘কোনো পরিচালক এমন প্রস্তাব দিলে আমি সানন্দে গ্রহণ করব।’

ট্রল করা প্রসঙ্গে নাজমুল আহসান কলিমউল্লাহ বলেন, ‘কেউ যদি আমার অভিনয় নিয়ে আলোচনা-সমালোচনা এমন কি ট্রল করে তাহলে বুঝতে হবে অভিনেতা হিসেবে আমি স্বার্থক। কেন না একজন অভিনেতার প্রধান কাজ হচ্ছে দর্শককে আনন্দ দেওয়া।’

বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য হয়েও চলচ্চিত্রে অভিনয়ের বিষয়ে তিনি বলেন, ‌‌‌‌‌‌‌‌‘আমি আমার দায়িত্ব যথাযথভাবে পালন করছি। এটা করতে গিয়ে কখনো কখনো আমি দিনে ২২ ঘণ্টা কাজ করে থাকি। কাজের ফাঁকে আমি যে অভিনয় করছি, এটা সবার ইতিবাচক হিসেবে দেখা উচিত। আমি মনে করি আমাকে দেখে অন্য কোনো উপাচার্যের মনে যদি অভিনয়ের সুপ্ত ইচ্ছে থাকে তাহলে সব সংশয় দূর করে তিনিও অভিনয় আসবেন।’

নিউজ হান্ট/ম

পূর্ববর্তী নিবন্ধকতদিন পরতে হবে মাস্ক? জানাল ডব্লিউএইচও
পরবর্তী নিবন্ধ‘অরণ্য নগরী’ গড়ছে সিঙ্গাপুর, নিষিদ্ধ এসি-গাড়ি