‘বিয়ে করিনি লিভ ইনে ছিলাম’, সরকারি নথিতে ‘বিবাহিত’ নুসরাত

137

কলকাতার বিনোদন জগত ছাড়াও পশ্চিমবঙ্গে এখন ‘টক অব দ্য টাউনে’ পরিণত হয়েছেন অভিনেত্রী ও লোকসভার তৃণমূল সাংসদ নুসরাত জাহান। বিয়ে, সন্তানের আগমনী বার্তা ও প্রেম এই তিনটিরই কেন্দ্রে রয়েছেন এই টালিউড অভিনেত্রী। আলোচনার মধ্যেই এবার বোমা বিস্ফোরণ করেছেন তিনি।

নুসরাত জানিয়েছেন, নিখিল জৈনের সঙ্গে তার বিবাহ হয়নি। তারা বিবাহ ছাড়াই একসঙ্গে থাকতেন। অপরদিকে লোকসভার ওয়েবসাইটে নুসরাতের নামের পাশে লেখা রয়েছে বিবাহিত। সেখানে স্বামীর নাম রয়েছে নিখিল জৈন।

কয়েকদিন ধরেই নুসরাতের বৈবাহিক সম্পর্ক ও তার সন্তানসম্ভবা হওয়া নিয়ে শোরগোল পড়ে গিয়েছে। এবার তা নিয়েই মুখ খুললেন তিনি। নিখিলের সঙ্গে বৈবাহিক সম্পর্কই নেই তার, একটি বিবৃতিতে এমনইটাই দাবি করলেন নুসরাত।

ঘটা করে তুরস্কে বিয়ের অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছিলেন নুসরাত ও নিখিল। এই বিষয়ে নুসরাত জানান, ‘তুরস্কের বিবাহ আইন অনুযায়ী এটা অবৈধ। হিন্দু-মুসলিম বিবাহের ক্ষেত্রে বিশেষ বিবাহ আইন অনুসারে বিয়ে রেজিস্ট্রেশনও হয়নি। ফলে এটা আইনত সিদ্ধ নয়।’

নুসরাত বলেন, নিখিলের সঙ্গে আমি লিভ-ইন সম্পর্কে ছিলাম। এটা বিয়েই নয়। সুতরাং বিচ্ছেদের প্রশ্নই ওঠে না।’

এমনকী সমস্ত গয়না, জামাকাপড়ও নিখিলের কাছেই রয়েছে বলে দাবি নুসরাতের।

কিন্তু নুসরাত নিখিলের সঙ্গে লিভ-ইন করেছেন বলে দাবি করলেও সরকারি নথিতে তিনি বিবাহিতা এবং স্বামীর নাম নিখিল জৈন।

লোকসভার ওয়েবসাইটে পশ্চিমবঙ্গ থেকে জয়ী তৃণমূল সাংসদদের যে তালিকা তাতে নুসরতের নামে ক্লিক করলেই দেখা যাচ্ছে যাবতীয় তথ্য। সেখানে স্পষ্ট লেখা নুসরাত বিবাহিত। তিনি বিয়ে করেছেন ২০১৯ সালের ১৯ জুন। স্বামীর নাম নিখিল জৈন।

সম্প্রতি জানা যায়, মা হতে চলেছেন নুসরাত। অনাগত সন্তানের পিতৃপরিচয় কী তা নিয়ে গত ৫ দিন ধরে বিতর্ক তুঙ্গে। শুধু তাই নয়, নিখিলের সঙ্গে তার বিবাহবিচ্ছেদ হচ্ছে না কেন, এই নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে চার দিক থেকে। এরপরই এমনটি জানালেন অভিনেত্রী।

তবে নুসরাতের এমন বিবৃতির পর বিতর্কের অবসান হওয়ার বদলে বিতর্ক আরও চাউর হয়েছে।

নিউজ হান্ট/কেএইচ

পূর্ববর্তী নিবন্ধসিডিসির সর্বোচ্চ ঝুঁকির তালিকায় বাংলাদেশ
পরবর্তী নিবন্ধদুবাই-ঢাকা রুটে ইউএস-বাংলার ফ্লাইট চালু ১৮ জুন