বেতাগী উপজেলা প্রকৌশলীর বিরুদ্ধে অনিয়মের অভিযোগ

33

বরগুনা থেকে জাহিদুল ইসলাম মেহেদী: বরগুনা জেলার বেতাগী উপজেলা প্রকৌশলী শিপলু কর্মকারের বিরুদ্ধে অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছে। পছন্দসই ঠিকাদারকে কাজ পাইয়ে দেওয়া এবং সংক্ষুব্ধদের কৌশলে শায়েস্তা করাসহ তার বিরুদ্ধে বিভিন্ন অভিযোগ এনেছেন এক ঠিকাদার।

বরগুনার বেতাগী উপজেলায় সম্প্রতি সময় কয়েকটি সড়ক ও কালভার্ট নির্মাণ কাজ চলছে। এসব সড়ক ও কালভার্ট নির্মাণে নিম্নমানের নির্মাণ সামগ্রী ব্যবহার করা হচ্ছে স্থানীয়দের অভিযোগে।

অভিযোগের বিষয়ে বেতাগী উপজেলা প্রকৌশলীর কাছে জানতে চাওয়া হলে তিনি সাংবাদিকদের অকথ্য ভাষায় গালাগালি করেন। এর আগে চলতি বছরের ফেব্রুয়ারি মাসে বেতাগী উপজেলার কাজিরাবাদ ইউনিয়নে নির্মাণাধীন ইউনিয়ন ভূমি অফিসের ভবনের ছাদ ধসে পড়েছে। নিম্নমানের সামগ্রী দিয়ে ভবন নির্মাণ করায় ভবনের ছাদের একাংশ ধসে পড়েছে বলে অভিযোগ উঠছে। ভবনের ছাদ ধসে পড়ার কারণ জানতে তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর বরগুনা কার্যালয়। তখন এলাকাবাসী অভিযোগ করেছিলেন ভবনটি নির্মাণে নিম্নমানের সামগ্রী ব্যবহার করে আসছেন। এছাড়া নির্মাণ কাজে প্রকৌশলীর গাফিলতি রয়েছে বলেও অভিযোগ।

সংবাদ পরিবেশনের জন্য মুঠোফোনে তথ্য চাওয়ায় সাংবাদিকদের সাথে অশ্লীল ভাষা ব্যবহার করেন বেতাগী উপজেলা প্রকৌশলী। ওই কর্মকর্তা সাংবাদিকের ব্যক্তিগত বিষয় তুলে তাকে গালাগালি করেন। রাত সাড়ে আটটার দিকে এই ঘটনা ঘটে।

গণমাধ্যমকর্মী ও বেতাগী উপজেলা প্রকৌশলী কথোকপোনের অডিও রেকর্ডিং ক্লিপ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে মুহূর্তে ভাইরাল হয়। এতে শোনা যাচ্ছে, উপজেলা প্রকৌশলী কাছে এক সংবাদকর্মী বেতাগী উপজেলার বিভিন্নস্থানের সড়ক ও কালভার্ট নির্মাণের তথ্য চাইলে ওই প্রকৌশলী কোনো ধরনের তথ্য না দিয়ে তাকে অকথ্য ভাষায় গালাগালি করেন।

ওই প্রকৌশলী সাংবাদিককে সাংবাদিকতা শিখে তার সাথে কথা বলতে বলেন এবং এও বলেন, আপনি বেশি কথা বাড়াইয়েন না আপনি সাংবাদিক না সংবাদ কর্মী। এক পর্যায় তিনি ওই সাংবাদিককে তুই বলতে শুরু করেন, তোকে তুই বললে তুই কি করবি?

ভুক্তভোগী ওই গণমাধ্যমকর্মী বলেন, বেতাগীর বেশ কিছু প্রকল্পের কাজ চলমান রয়েছে। এসব কাজের অনিয়মের অভিযোগ বিষয় বেতাগী উপজেলা প্রকৌশলী শিপলু কর্মকর্তার কাছে তথ্য চাইলে তিনি আমাকে অকথ্য ভাষায় গালাগালি করেন।

অভিযোগের বিষয় প্রকৌশলী শিপলু কর্মকারের মুঠোফোনে কল দিলে তিনি ফোন রিসিভ করেনি। এ বিষয় স্থানীয় সরকার অধিদপ্তর (এলজিইডি) বরগুনা জেলা নির্বাহী প্রকৌশলী এসএম আরিফুর রহমান বলেন, আমি একটি অডিও কল রেকর্ডিং পেয়েছি। আপনাদের কাছে সময় চাই ,আমি এই ঘটনার ব্যবস্থা নেবো।

নিউজ হান্ট/কেএইচ

পূর্ববর্তী নিবন্ধসাতক্ষীরায় করোনা ওয়ার্ডে ৪ মৃত্যু
পরবর্তী নিবন্ধফুলবাড়ীতে গাঁজাসহ দুই মাদক ব্যবসায়ী গ্রেপ্তার