বেপরোয়া কায়দায় দেশ শাসন করছে সরকার: ফখরুল

12

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর অভিযোগ করে বলেছেন, ৩০ ডিসেম্বরের নির্বাচনের আগের রাতে ভোটের মাধ্যমে নির্লজ্জভাবে রাষ্ট্রক্ষমতা দখলকারী আওয়ামী সরকার এখন আরও বেপরোয়া কায়দায় দেশ শাসন করছে। দেশকে বিরোধী দলশূন্য করতে বিএনপির যেকোন শান্তিপূর্ণ কর্মসূচিতে হামলা, গুলিবর্ষণ ও নেতাকর্মীদেরকে গ্রেপ্তার করতে মরিয়া হয়ে উঠেছে তারা।

বুধবার এক বিবৃতিতে তিনি এসব বলেন। চট্টগ্রাম, নওগাঁ, খুলনা, কিশোরগঞ্জ, ময়মনসিংহ, পটুয়াখালীসহ বিভিন্ন জেলায় বিএনপি ও অঙ্গ-সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীদের গ্রেপ্তার, হামলার প্রতিবাদে এ বিবৃতি দেন বিএনপি মহাসচিব।

মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, বিএনপিসহ বিরোধী দলীয় নেতাকর্মীদের রাজনীতির অঙ্গন থেকে সরিয়ে দিতে তাদের ওপর নির্যাতন-নিপীড়ন যেন বর্তমান আওয়ামী সরকারের দৈনন্দিন কর্মসূচিতে পরিণত হয়েছে। জুলুমবাজ সরকার নির্বিচারে মানুষ হত্যা, শান্তিপূর্ণ সভা-সমাবেশে হামলা এবং জনগণের সাংবিধানিক ও গণতান্ত্রিক অধিকার হরণের প্রতিবাদে বিএনপি আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছে। এই আন্দোলনকে দমন করতে গণবিরোধী সরকার হামলা-মামলা-দমন-নিপীড়নর সাঁড়াশি অভিযান অব্যাহত রেখেছে।

তিনি বলেন, ২৯ ও ৩০ মার্চ সারাদেশের মহানগর ও জেলা সদরে বিএনপির কর্মসূচিতে হামলার পর এখন মিথ্যা মামলা দায়ের করে নেতাকর্মীদেরকে গ্রেপ্তার করতে অভিযান, হয়রানি ও জুলম চালানো হচ্ছে।

বিএনপি মহাসচিব বলেন, দেশের বিভিন্ন স্থানে বিএনপি নেতাকর্মীদের ওপর হামলা ও গ্রেপ্তার বর্তমান গণধিকৃত সরকারের ধারাবাহিক অপকর্মেরই অংশ। সভা-সমাবেশ করা মানুষের গণতান্ত্রিক অধিকার হলেও ক্ষমতাসীনরা বিরোধী দলের কর্মসূচি পণ্ড করতে নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা, তাদের ওপর হামলা, নির্যাতন-নিপীড়ন এবং গুম, বিচারবহির্ভূত হত্যা, অপহরণ, চাঁদাবাজি ও দখলবাজিকে সরকারী নীতিতে পরিণত করেছে।

মির্জা ফখরুল বলেন, সরকার দেশ শাসনে নজীরবিহীন ব্যর্থতা ঢাকতেই বিএনপি নেতাকর্মীদেরকে কারাগারে আটকে রাখতে সুদুরপ্রসারী মাস্টারপ্লান নিয়ে এগিয়ে যাচ্ছে। তবে জনদাবি মেনে দমন-নিপীড়ণ বন্ধ এবং পদত্যাগ করে নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের হাতে ক্ষমতা হস্তান্তর না করলে বর্তমান সরকারকে জনগণের কাঠগড়ায় দাঁড়াতে হবে।

নিউজ হান্ট/আরকে