ভাষাসৈনিক ও বীর মুক্তিযোদ্ধা ইউসুফ কালু আর নেই

12

বাংলা ভাষা ও স্বাধীনতা সংগ্রামের জন্য লড়েছিলেন। ইতিহাস সৃষ্টি করেছেন এই প্রজন্মের জন্য। অবশেষে না ফেরার দেশে চলে গেলেন ভাষাসৈনিক ও বীর মুক্তিযোদ্ধা ইউসুফ কালু।

৯১ বছর বয়সে বার্ধক্যজনিত কারণে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সোমবার (২৯ মার্চ) সন্ধ্যা পৌনে ৬টায় তিনি মারা যান। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ভাষাসৈনিক ও বীর মুক্তিযোদ্ধা ইউসুফ কালুর ছেলে মো. সোহাগ।

ইউসুফ কালু ছিলেন জীবন্ত ইতিহাস। মৃত্যুর আগ পর্যন্ত ভাষাসংগ্রাম, মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস নিয়ে সক্রিয় ছিলেন তিনি। তার জন্ম ১৯৩১ সালের ১৭ জানুয়ারি ঝালকাঠির রাজাপুরের কানুদাসকাঠির মিয়াবাড়িতে। বাবা ওবায়দুল করিম (রাজা মিয়া) ও মা ফাতেমা খাতুন।

তিন ভাই দুই বোনের মধ্যে তিনি সবার ছোট। বাবা ওবায়দুল করিম প্রথমে ১৯২০ সালে কোলকাতা পোর্ট কমিশনে চাকরি করতেন। পরবর্তীতে চাকরি ছেড়ে রাজা রায় বিহারির জমিদারির নায়েব নিযুক্ত হন। আমুয়া, ভান্ডারিয়া, কানুদাসকাঠি অঞ্চলের দায়িত্বে ছিলেন তিনি।

ইউসুফ কালুর হাতেখড়ি পাঠশালায়। সংগঠন শুরু শিশু কিশোরদের মুকুল ফৌজ দিয়ে। তিনি বরিশাল ব্রজমোহন বিদ্যালয়ের (বিএম স্কুল) ছাত্র ছিলেন।

১৯৪৮ সালে অষ্টম শ্রেণির ছাত্র থাকাকালীন ভাষা আন্দোলনে জড়িয়ে পড়েন। ছাত্রফ্রন্টে নিজের নাম লেখান। তিনি মিছিলের অগ্রভাগে থাকতেন। মেট্রিকুলেশন পাস করে ১৯৫১ সালে আইএ ভর্তি হন বিএম কলেজে কমার্স বিভাগে। তৎকালীন ছাত্রলীগের সভাপতি ও বিএম কলেজ ছাত্র সংসদের ভাইস প্রেসিডেন্ট (ভিপি) সৈয়দ গোলাম কিবরিয়াকে আহ্বায়ক করে বিএম কলেজে গঠন হয় ২৫ সদস্যের ‘ভাষা সংগ্রাম পরিষদ। সেই কমিটির সদস্য হন ইউসুফ কালু। আন্দোলনের গতি বাড়লে সেই কমিটির কলেবর বৃদ্ধি করে ৮১ সদস্য বিশিষ্ট বৃহত্তর বরিশাল ভাষা সংগ্রাম পরিষদ করা হয়।

১৯৫৪ সালের জাতীয় নির্বাচনের আগে বরিশালে প্রচারণায় আসেন তৎকালীন পাকিস্তান মুসলিম লীগের সভাপতি ও কেন্দ্রীয় মন্ত্রী খান আব্দুল কাইউম। কাইউমকে ঠেকাতে কালো পতাকা মিছিলসহ আন্দোলন সংগ্রামে অংশ নেন কালু। ওই মিছিলে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে কাউনিয়ার বাসিন্দা মালেক নামে একজন নিহত হন। ইউসুফ কালুসহ ৩৫ জন গ্রেফতার হন। ২২ দিন পর জামিন পেয়ে নির্বাচনে যুক্তফ্রন্টের হয়ে কাজ শুরু করেন।

৬৯’র গণঅভ্যুত্থানসহ প্রতিটি আন্দোলনেই দেশ ও মানুষের জন্য সক্রিয়ভাবে কাজ করেছেন। ১৯৭১ সালে স্বাধীনতা যুদ্ধও করেন তিনি। ১৯৭১ সালের ১৪ মে কলকাতা লালবাজারে বাংলাদেশ সহায়ক সমিতির সহযোগিতায় হাসনাবাদ, হিংগলগড়, টাকি হেডকোয়ার্টার্সে প্রশিক্ষণ নেন। দেশে ফিরে ৯ নম্বর সেক্টরের অধীনে কালীগঞ্জ, সাতক্ষীরার সীমান্ত এলাকায় পাকবাহিনীর সঙ্গে সম্মুখ যুদ্ধ করেন।

মুক্তিযুদ্ধকালীন নুরুল আলম ফরিদ সম্পাদিত রনাঙ্গনের মুখপত্র ‘বিপ্লবী বাংলাদেশ’ পত্রিকার পরিচালকদের একজন ছিলেন। ৭১ সালে তার বাড়ি লুট হয়। তখন দলিলপত্র, ব্যক্তিগত কাগজপত্র সব কিছু খোয়া যায়। শিক্ষা জীবনের প্রথমে ছাত্র ইউনিয়ন করেছেন তিনি।

১৯৫২ সালে যোগ দেন ছাত্রলীগে। পরে জড়িয়ে পড়েন আওয়ামী রাজনীতির সঙ্গে। তিনি স্বৈরাচারবিরোধী ও প্রতিটি প্রগতিশীল আন্দোলনে অংশগ্রহণ করেন। ১৯৬২ সালে সাংবাদিকতা শুরু করেন। প্রথমে আজাদ ও পরে দৈনিক পয়গামের বরিশাল সংবাদদাতা হিসাবে কাজ করেছেন। বরিশাল প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেছেন ১৯৬২ সাল থেকে ১৯৭৩ সাল পর্যন্ত। ওই একই সময়ে ফুটবল, ক্রিকেট, ভলিবল খেলায় পারদর্শী তিনি বরিশাল ক্রীড়া সংস্থারও সদস্য ছিলেন।

ইউসুফ কালুর মৃত্যুতে শোক জানিয়েছেন পার্বত্য শান্তিচুিক্ত বাস্তবায়ন কমিটির আহ্বায়ক আবুল হাসানাত আবদুল্লাহ এমপি, বরিশাল সিটি করপোরেশনের মেয়র সেরনিয়াবাত সাদিক আব্দুল্লাহ, বরিশালের জেলা প্রশাসক জসীম উদ্দিন হায়দারসহ বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন।

নিউজ হান্ট/ম