মিয়ানমারে জান্তাবিরোধী বিক্ষোভ, নিহত বেড়ে ৯০

9
রাস্তায় টায়ারে আগুন জ্বালিয়ে বিক্ষোভ করছেন মিয়ানমারের গণতন্ত্রকামী বিক্ষোভকারীরা

মিয়ানমারে জান্তাবিরোধী বিক্ষোভে শনিবার নিরাপত্তাবাহিনীর গুলিতে নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৯০ জনে পৌঁছেছে।

প্রত্যক্ষদর্শীদের বর্ণনায় ও বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে আজকের দিনটিকে জান্তাবিরোধী বিক্ষোভের সবচেয়ে রক্তক্ষয়ী দিন বলে অভিহিত করা হয়েছে।

আন্তর্জাতিক সংবাদ সংস্থা রয়টার্স জানিয়েছে, মিয়ানমারের সামরিক জান্তার সশস্ত্র বাহিনী দিবস উদ‌যাপনের মধ্যেই দেশজুড়ে নিরাপত্তা বাহিনীর গুলিতে শনিবার এই প্রাণহানির ঘটনা ঘটেছে।

মিয়ানমার নাউ নামে স্থানীয় একটি নিউজ পোর্টাল জানায়, দেশজুড়ে নিরাপত্তাবাহিনীর হাতে এদিন কমপক্ষে ৯১ জন নিহত হয়েছে।

এর মধ্যে কেবল মান্দালয়েই ৫ বছরেরও কম বয়সী এক শিশুসহ ২৯ জন নিহত হয়েছে। অন্যদিকে ইয়াঙ্গুনে নিহত হয়েছে অন্তত ২৪ জন।

এদিকে, মিয়ানমারের দুই ডজন জাতিগত সশস্ত্র দলগুলোর একটি ‘কারেন ন্যাশনাল ইউনিয়ন’ জানায়, তারা থাই সীমান্তের কাছে একটি সেনা পোস্টে হামলা চালিয়েছে। এতে একজন লেফটেন্যান্ট কর্নেলসহ ১০ জন নিহত হয়েছে। যুদ্ধে তারা নিজেদের এক যোদ্ধাকেও হারিয়েছেন।

স্থানীয় সংবাদ সংস্থার প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, মান্দালয়-ইয়াঙ্গুন ছাড়াও এদিন মধ্যবর্তী সাগেইং অঞ্চল, মাইঙ্গিয়ান, লাসিহো, বাগোসহ বিভিন্ন এলাকায় নিরাপত্তাবাহিনীর গুলিতে মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। এমনকি ১ বছরের ছোট বাচ্চাও চোখে রাবার বুলেটের আঘাতে গুলিবিদ্ধ হয়েছে।

প্রসঙ্গত, শনিবার সশস্ত্র বাহিনী দিবস পালন করছে মিয়ানমারের জান্তা সরকার। এ উপলক্ষে দেশটির সামরিক সরকার হুঁশিয়ার করে দিয়ে বলেছিল যে, রাস্তায় নামলে বিক্ষোভাকারীদের ‘মাথা ও পিঠে’ গুলি করা হবে। তবে সে হুঁশিয়ারি উপেক্ষা করে রাস্তায় নেমে আসে বিক্ষোভকারীরা।

নিউজ হান্ট/এনএইচ