রাজনীতিতে নেমেই বাজিমাত সায়নীর

32

বিধানসভা নির্বাচনে আসানসোল দক্ষিণ আসনে সায়নী পরাজিত হয়েছিলেন। কিন্তু আত্মবিশ্বাস এতটুকুও টালল খায়নি। এবার পরিশ্রমের স্বীকৃতি হিসেবে সায়নীকে যুব তৃনমূলের সভাপতির পদ দেওয়া হল। মাত্র ২৮ বছর বয়সে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের যুব তৃণমূল কংগ্রেসের সভাপতি হলেন সায়নী।

কমিটি ঘোষণার সময় মমতা বলেন, নির্বাচনের মাঠে কঠোর পরিশ্রম ও করোনায় মানুষের পাঁশে দাঁড়ানোর উপহার হিসেবে সায়নীকে যুব তৃণমূল কংগ্রেসের সভাপতি উপহার হিসেবে দেয়া হলো। এর আগে এই পদে ছিলেন মমতার ভাতিজা অভিষেক ব্যানার্জি।

মাত্র চার মাস আগে এপি আনন্দ টিভির বিতর্কে অনুষ্ঠানে সমালোচক প্যানেল থেকে বক্তব্য দিয়ে রাজনীতির মাঠে নজর কেড়ে নেন এই অভিনেত্রী।

ডাক পান মমতার দল থেকে। আসানসোল দক্ষিণ থেকে বিধান সভায় বিধায়ক পদে ভোটের মাঠে লড়াই করে অল্প ভোটে বিজেপির প্রার্থীর কাছে হেরে যান। হেরেও থেমে থাকেননি। করোনায় নিয়মিত মানুষের কাছে ছুটে গেছেন। কর্মদক্ষতা দিয়ে আসানসোল দক্ষিণের মানুষের মধ্যে সাড়াও ফেলেছেন অভিনেত্রী সায়নী।

তার কঠোর পরিশ্রম ও সাহসের কারণে সংগঠনের নেতৃত্বের ভরসাও রাখলেন মূখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। দায়িত্ব পেয়ে খুশি সায়নী বললেন, ‘মানুষের মধ্যে পৌঁছতে হবে। আমি মানুষের কাছে গিয়ে তার ফল পেয়েছি। আমাদের বড়দের পরামর্শ নিয়ে এগোতে হবে।’

নিউজ হান্ট/কেএইচ

পূর্ববর্তী নিবন্ধস্বাধীনতার ৫০ বছর পর প্রাকৃতিক গ্যাস পাচ্ছে রংপুর
পরবর্তী নিবন্ধকরোনা মোকাবিলায় যুক্তরাষ্ট্র থেকে আসছে মেডিকেল সামগ্রী