রাজশাহীতে করোনায় মৃতের সংখ্যায় গরমিল, একে অপরকে দোষারোপ

10

মীর তোফায়েল হোসেন (রাজশাহী থেকে): রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে করোনায় মৃত্যু সংখ্যার সঙ্গে রাজশাহী বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালকের কার্যালয় থেকে পাঠানো মৃতের তথ্যের সঙ্গে মিল থাকছে না। এ নিয়ে বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালকের কার্যালয় ও রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল একে অপরকে দুষছেন।

তারা বলছেন, স্বাস্থ্য অধিদপ্তর বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালকের কার্যালয়ের তথ্যের ভিত্তিতেই প্রতিদিন শনাক্ত ও মৃতের সংখ্যা দেয়।

অথচ বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালকের কার্যালয়ে মৃতের সংখ্যা হাসপাতালের মৃত্যুর হার অনুযায়ী বেশি হওয়ার কথা। কারণ রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ শুধু তাদের হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃতদের তথ্যই দিতে পারে। আর বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালক সিভিল সার্জন অফিসের মাধ্যমে হাসপাতালে মৃত ছাড়াও যেকোনো জেলার সদর হাসপাতাল কিংবা বাড়িতে থেকে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃতদের তথ্যও সংগ্রহ করে দিতে হয়। এইজন্য হাসপাতালে মৃতদের সংখ্যা অনুযায়ী জেলার তথ্যেও বেশি মৃতের সংখ্যা থাকা উচিত। অথচ ঘটছে তার উল্টো।

গত ১২ দিনে বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালকের কার্যালয় থেকে পাঠানো মৃতের সংখ্যা থেকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালেে করোনায় মৃত ১১ জনের তথ্য বেশি পাওয়া গেছে। অর্থাৎ বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালকের কার্যালয় থেকে ১১ জন মৃতের সংখ্যা কম পাওয়া গেছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, রাজশাহী মেডিকেল কলেজ কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় গত ২৭ মে থেকে ৭ জুন পর্যন্ত এই ১২ দিনে করোনার উপসর্গ ও করোনা নিয়ে মোট ৮৯ জনের মৃত্যু হয়েছে। এর মধ্যে ৬৪ জন করোনা আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেন। এদের মধ্যে রাজশাহীর ১৩ জন, চাঁপাইনবাবগঞ্জে ৩৭ জন, নাটোরে ৫ জন, নওগাঁয় ৪ জন, পাবনায় ২ জন ও সিরাজগঞ্জে এক জন করোনায় মারা গেছেন।

অথচ বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালকের কার্যালয় থেকে পাঠানো তথ্যে এই ১২ দিনে মৃতের সংখ্যা দেখানো হয়েছে ৫৩ জন। অর্থাৎ হাসপাতাল থেকে ১১ জন মৃতের সংখ্যা কম পাওয়া গেছে। এর মধ্যে রাজশাহী থেকে মৃতের সংখ্যা দেওয়া হয়েছে ১২ জন, চাঁপাইনবাবগঞ্জে ২৮ জন, নাটোরে ৬ জন ও নওগাঁয় ৭ জন মৃত দেখানো হয়েছে। যেমন গত ২৪ ঘণ্টায় রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে করোনায় আক্রান্ত হয়ে ৭ জনের মৃত্যু হয়েছে। এর মধ্যে চাঁপাইনবাবগঞ্জের ৩ জন, রাজশাহী, নাটোর, পাবনা ও নওগায় একজন করে মারা গেছে।

অথচ বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালকের কার্যালয় থেকে পাঠানো তথ্যে গত ২৪ ঘণ্টায় রাজশাহী, নওগাঁ ও নাটোর থেকে কোনো মৃত্যু দেখানো হয়নি। চাঁপাইনবাবগঞ্জ থেকে শুধু দুইজন মৃত্যু দেখানো হয়েছে।

রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক বিগ্রেডিয়ার জেনারেল শামীম ইয়াজদানী জানান, আমরা করোনায় মৃতের সব তথ্য বিভাগীয় পরিচালকের কার্যালয় থেকে শুরু করে সিভিল সার্জন কার্যালয় থেকে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরসহ সব জায়গায় পাঠিয়ে দেই। ফলে তারা কেন মৃতের সংখ্যা কম দিচ্ছে তা বলতে পারছি না।

রাজশাহীর সিভিল সার্জন ডা. কাইয়ুম তালুকদার জানান, সিভিল সার্জন অফিসের কাজ হাসপাতালে কেউ মারা গেলে সেই তথ্য দিবেই। আবার বাড়িতে বা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স যেখানেই হোক না কেন জেলার মধ্যে করোনায় কেউ মারা গেলে তার তথ্যও স্বাস্থ্য পরিচালকের কার্যালয়ে পাঠানো হয়। আমার মনে হয়, রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মৃতের সংখ্যা বাড়িয়ে বলছে।

নিউজ হান্ট/আরকে

পূর্ববর্তী নিবন্ধএক সপ্তাহের মধ্যে সংসদ এলাকা থেকে সাইনবোর্ড-ব্যানার অপসারণের নির্দেশ
পরবর্তী নিবন্ধবাগেরহাটে মামলা করে ঘর ছাড়া ভুক্তভোগী পরিবার, প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা