রাজশাহী মেডিকেলের করোনা ইউনিটে আরো ৬ জনের মৃত্যু

9

রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালের করোনা ইউনিটে ২৪ ঘণ্টায় আরও ছয়জনের মৃত্যু হয়েছে।

শনিবার সকাল ৮টা থেকে রোববার সকাল ৮টার মধ্যে তাদের মৃত্যু হয়।

ওই ছয়জনের মধ্যে দুইজন করোনায় মারা গেছেন। আর চারজন করোনা উপসর্গ নিয়ে চিকিৎসা নিচ্ছিলেন।

রামেক হাসপাতালের উপপরিচালক সাইফুল ফেরদৌস এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, মৃতদের মধ্যে একজন রাজশাহী আর তিনজন চাঁপাইনবাবগঞ্জের। এ ছাড়া নাটোরের একজন ও চুয়াডাঙ্গার একজন রয়েছেন।

গত ২৪ মে থেকে ৬ জুন পর্যন্ত ১৪ দিনে রামেক হাসপাতালের করোনা ইউনিট ও আইসিউতে মারা গেলেন ১০৭ জন।

রামেকের করোনা ইউনিটে ২৩৫ জন রোগী ভর্তি আছে। গত ২৪ ঘণ্টায় ভর্তি হয়েছেন ৩০ জন। এর মধ্যে আটজন চাঁপাইনবাবগঞ্জের, ১৮ জন রাজশাহীর, তিনজন নওগাঁর ও একজন নাটোরের।

রামেক হাসপাতাল ল্যাব সূত্রে জানা যায়, শনিবার এই দুই ল্যাবে ৫৪২ জনের নমুনা পরীক্ষা করে ২৯২ জনের করোনা শনাক্ত হয়। এর মধ্যে রাজশাহীর ৩৬৬ জনের নমুনা পরীক্ষা করে ১৮৪ জনের পজিটিভ এসেছে। আর চাঁপাইনবাবগঞ্জের ১৭৬ জনের নমুনা পরীক্ষা করে ১০৮ জনের করোনা পজিটিভ এসেছে।

সীমান্তবর্তী জেলা রাজশাহী, চাঁপাইনবাবগঞ্জ ও নওগাঁয় কিছুদিন ধরে সংক্রমণ বাড়তে শুরু করে। রাজশাহীর পাশের চাঁপাইনবাবগঞ্জে এই সংক্রমণ হার ৫০ শতাংশ ছাড়িয়ে যায়।

এই অবস্থায় সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে স্থানীয় প্রশাসন গত ২৫ মে থেকে জেলাটিতে লকডাউন ঘোষণা করে। প্রথম সপ্তাহের লকডাউন শেষে সংক্রমণ কিছুটা কমলেও আবার বাড়ানো হয় লকডাউন। নতুন করে এক সপ্তাহ বাড়িয়ে চাঁপাইনবাবগঞ্জে লকডাউন দেয়া হয় ৭ জুন পর্যন্ত।

পাশের জেলা নওগাঁতেও সংক্রমণ বাড়তে শুরু করে এই সময়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে জেলা প্রশাসন নিয়ামতপুর ও নওগাঁ সদর উপজেলায় সাত দিনের লকডাউন দেয় গত বুধবার রাত থেকে।

সংক্রমণ রাজশাহীতেও বেড়েছে গত কয়েক দিনে। সেখানেও সংক্রমণের হার ৫০ শতাংশের আশপাশে। এই পরিস্থিতিকে উদ্বেগজনক বলছেন স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা।

নিউজ হান্ট/ম

পূর্ববর্তী নিবন্ধভারতের বিপক্ষে আত্মবিশ্বাসী বাংলাদেশ, তবে বড় চ্যালেঞ্জ ‘রক্ষণে’
পরবর্তী নিবন্ধআজিমপুর স্টাফ কোয়ার্টার থেকে ঢাবি ছাত্রীর মরদেহ উদ্ধার