সুয়েজ খালে আটকে পড়া জাহাজ মুক্ত

15

সাত দিন আটকে থাকার পর অবশেষে সরানো সম্ভব হয়েছে মিসরের সুয়েজ খালে আটকে থাকা পণ্যবাহী জাহাজ এভার গিভেনকে।

সোমবার (২৯ মার্চ) জাহাজটি উদ্ধার করা হয়েছে বলে জানিয়েছে ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি ।

জানা যায়, সোমবার (২৯ মার্চ) মিশরের স্থানীয় সময় ভোর সাড়ে ৪টায় উদ্ধারকারীদের তৎপরতায় আটকে থাকা ৪০০ ফুট দৈর্ঘ্যের জাহাজটি পুনরায় ভাসানো সম্ভব হয়েছে।

জাহাজটি আটকে থাকায় খালের দুই পাশে সৃষ্টি হয়েছে দীর্ঘ জাহাজ জটের। তবে, জাহাজটি ভাসানো সম্ভব হলেও কবে নাগাদ সুয়েজ খাল খুলে দেওয়া হবে সে সম্পর্কে এখনো নিশ্চিত কিছু বলা যাচ্ছে না।

সুয়েজ খাল কর্তৃপক্ষ জানায়, পূর্ণিমার কারণে সৃষ্ট জোয়ারের সময় বাড়তি স্রোতের ব্যবহার করে আটকে থাকা জাহাজটি ভাসানো সম্ভব হয়েছে।

এ বিষয়ে সুয়েজ খাল কর্তৃপক্ষের প্রধান লেফটেন্যান্ট জেনারেল ওসামা রেবেই জানান, উদ্ধারকারী ও কর্মীরা এখনো সেখানে কাজ করছে। জাহাজটি সম্পুর্ণ স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরে আসলে উদ্ধার অভিযান শেষ হবে বলে আশা করা যাচ্ছে।

কাতারভিত্তিক আল-জাজিরার প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গত মঙ্গলবার সকালে সুয়েজ কাল অতিক্রমের সময় প্রবল বাতাস আর ধূলিঝড়ের কবলে পড়ে ৪০০ মিটার দীর্ঘ কনটেইনারবাহী জাহাজটি। তাইওয়ানের এভারগ্রিন মেরিন করপোরেশন লিজ নিয়ে এটি পরিচালনা করে। প্রতিষ্ঠানটি জানিয়েছে, হঠাৎ প্রবল বাতাস আর ধূলিঝড়ে জাহাজটির গতিপথ বদলে যায়। এটির নিচের অংশ আড়াআড়িভাবে তীরের মাটিতে আটকে যায়।

বুধবার থেকে উদ্ধার অভিযান শুরু করে সুয়েজ খাল কর্তৃপক্ষ (এসসিএ)। উদ্ধার কাজে শুরুতে যুক্ত হয় মিসরের আটটি টাগবোট। কোনোভাবেই আড়াআড়ি হয়ে আটকে থাকা বিশাল জাহাজটির মুখ ফিরিয়ে আবারও জলে ভাসানো সম্ভব হচ্ছিল না। তাই শনিবার (২৭ মার্চ) উদ্ধার কাজে যুক্ত হয় ১৪টি টাগবোট।

মেরিটাইম সার্ভিস সংস্থা ইনচেক জানিয়েছে, সুয়েজ খালে আটকে থাকা কনটেইনারবাহী জাহাজটি মুক্ত হয়েছে।

মিশরের মধ্য দিয়ে প্রবাহিত ব্যস্ততম সুয়েজ খালের গুরুত্ব বিশ্ববাণিজ্যে অনেক।

নিউজ হান্ট/এনএইচ