হেফাজতের নতুন কর্মসূচি: ২৯ মার্চ দোয়া মাহফিল, ২ এপ্রিল বিক্ষোভ

17

আগামী সোমবার (২৯ মার্চ) দোয়া মাহফিল ও শুক্রবার (২ এপ্রিল) বিক্ষোভ কর্মসূচি ঘোষণা করেছে হেফাজতে ইসলাম।

আজ রবিবার (২৮ মার্চ) বিকালে পল্টনে খেলাফত মজলিসের অফিসে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে দলটির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মাওলানা নুরুল ইসলাম জিহাদী এ কর্মসূচি  ঘোষণা দেন।

তিনি বলেন, হেফাজতের ভবিষ্যৎ কর্মসূচি শান্তিপূর্ণভাবে পালন করা হবে। হরতাল আর বাড়ানো হচ্ছে না বলেও জানান হেফাজতের এই নেতা।

মাওলানা নুরুল ইসলাম জিহাদী বলেন, হেফাজতের শান্তিপূর্ণ কর্মসূচিতে পুলিশ হামলা চালিয়েছে। সরকারি দলের নেতাকর্মীরাও আমাদের ওপর হামলা চালিয়েছে। শান্তিপূর্ণ ঘটনায় প্রকৃত দোষীদের খুঁজে বের করে শাস্তির আওতায় আনতে হবে। আহতের ক্ষতিপূরণ দিতে হবে। আটকদের অবিলম্বে মুক্তি দিতে হবে।

তিনি বলেন, দেশে কোনো ধরনের বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি হোক আমরা চাই না। সরকারদলীয় লোক বাড়ি বাড়ি হামলার হুমকি দিচ্ছে।

এদিকে হেফাজতে ইসলামের হরতাল সর্বাত্মকভাবে পালন করার জন্য দেশবাসীকে ধন্যবাদ জানিয়ে তিনি বলেন, হেফাজতের ভবিষ্যত কর্মসূচি শান্তিপূর্ণভাবে পালন করা হবে।

হেফাজতের এ নেতা আরও বলেন, প্রকৃত দোষীদের খুঁজে বের করে শাস্তির আওতায় আনতে হবে। আহতের ক্ষতিপূরণ দিতে হবে। আটকদের অবিলম্বে মুক্তি দিতে হবে। বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি হোক আমরা চাই না। সরকার দলীয় লোক বাড়ি বাড়ি হামলার হুমকি দিচ্ছে। ২/১ দিনের মধ্যে দাবি মানা না হলে আমিরে হেফাজত বাবুনগরীসহ শীর্ষস্থানীয় নেতারা বসে কঠোর কর্মসূচির ঘোষণা দেবেন।

নুরুল ইসলাম বলেন, আমরা কারও প্রতিপক্ষ নই। হেফাজত একটি অরাজনৈতিক সংগঠন। এই সংগঠনকে দমন করার কোনো কারণ নেই, যা সরকার করেছে।

সংবাদ সম্মেলনে হেফাজতের কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব মামুনুল হক বলেন, আমাদের আজকের কর্মসূচি শান্তিপূর্ণভাবে পালিত হয়েছে। এই শান্তিপূর্ণ আন্দোলনে বিনা উস্কানিতে হামলা করা হয়েছে। শুধু রাস্তা থেকে হেফাজত কর্মীদের সরাতে গুলি করে হত্যা করা হয়েছে। হেফাজতে কেন্দ্রীয় নেতা মাওলানা আব্দুল হামিদ মধুপুরী গুলিবিদ্ধ হয়েছেন।

নিউজ হান্ট/এনএইচ