রবিবার, নভেম্বর ২৮, ২০২১

অর্থনীতির পুনরুদ্ধারে বাংলাদেশকে ২.৬৭ বিলিয়ন ডলার দেবে জাপান

আরও পড়ুন

মহামারিতে ক্ষতিগ্রস্ত অর্থনীতির পুনরুদ্ধারে বাজেট সহায়তাসহ কয়েকটি মেগা প্রকল্পে বাংলাদেশকে ২.৬৭ বিলিয়ন ডলার ঋণ সহায়তা দিচ্ছে জাপান। আজ সোমবার (২২ নভেম্বর) ঢাকায় অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগে দুই দেশের মধ্যে ঋণচুক্তি সই হয়েছে।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে অর্থ মন্ত্রণালয় জানায়, দুইটি বিনিয়োগ প্রকল্প এবং একটি বাজেট সহায়তা সংক্রান্ত ঋণের জন্য বিনিময় নোট ও ঋণচুক্তি সই হয়েছে। অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের সচিব ফাতিমা ইয়াসমিন, বাংলাদেশে নিযুক্ত জাপানের রাষ্ট্রদূত ইতো নাওকির সঙ্গে বিনিময় নোট এবং বাংলাদেশে জাইকা অফিসের চিফ রিপ্রেজেন্টেটিভ মি. ইউহো হায়াকাওয়ার সঙ্গে ঋণচুক্তি স্বাক্ষর করেন।

অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল সভায় ভার্চুয়ালি যুক্ত ছিলেন।

সভায় অর্থমন্ত্রী বলেন, কোভিড-১৯ মহামারির শুরুতে জাপান বাজেট সহায়তার আহ্বানে খুবই দ্রুত ইতিবাচক প্রতিক্রিয়া দেখিয়েছে।

বঙ্গবন্ধু সড়ক ও যমুনা নদীর উপর রেল সেতু, ঢাকা শহরের মেট্রো রেল নেটওয়ার্ক, হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর তৃতীয় টার্মিনাল, মাতারবাড়ি পাওয়ার প্লান্ট ও মাতারবাড়ী সমুদ্র বন্দরসহ চলমান বেশ কয়েকটি আইকনিক মেগা প্রকল্পে জাপান সরকারের সম্পৃক্ততার জন্য অর্থমন্ত্রী জাপান সরকারের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানান।

একই ইস্যুতে বাংলাদেশকে সহায়তা করতে ইকোনমিক ডেভেলপমেন্ট কোঅপারেশন ফান্ড (ইডিসিএফ) থেকে ১০০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার ঋণ অনুমোদন দিয়েছে দক্ষিণ কোরিয়া।

উন্নয়নশীল দেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে সহায়তা করতে দক্ষিণ কোরিয়ার উন্নয়ন অর্থায়ন কর্মসূচি হলো ইডিসিএফ।

আজ সোমবার ঢাকায় অবস্থিত দক্ষিণ কোরিয়ার দূতাবাসের এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ২০২১ থেকে ২০২৫ সাল পর্যন্ত নতুন ইডিসিএফ ফ্রেমওয়ার্ক চুক্তির অধীনে বাস্তবায়িত হওয়া প্রথম ঋণ এটি। গত ২৪ অক্টোবর দুই সরকারের মধ্যে এই চুক্তিটি স্বাক্ষরিত হয়েছিল।

এর আগে, করোনা মহামারির বিরুদ্ধে লড়াইয়ে ২০২০ সালের ডিসেম্বরে দক্ষিণ কোরিয়া সরকার বাংলাদেশকে বাজেট সহায়তা হিসেবে ৫০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার ঋণ দিয়েছিল।

চুক্তি অনুযায়ী, দক্ষিণ কোরিয়া সরকার ৫ বছরের জন্য বাংলাদেশকে ৭০০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার পর্যন্ত ছাড়ের ঋণ দেবে।

১০০ মিলিয়ন মার্কিন ডলারের নতুন ছাড়মূলক ঋণটি পাবলিক ফিনান্স ম্যানেজমেন্ট সিস্টেমকে এগিয়ে নিতে এবং মহামারিতে ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে লড়াই করা ক্ষুদ্র ও মাঝারি ব্যবসায়ের উন্নতিতে কয়েকটি প্রকল্প বাস্তবায়নে ব্যবহার করা হবে।

কোরিয়া এক্সিম ব্যাংক এবং বাংলাদেশ সরকারের মধ্যে ঋণ চুক্তি স্বাক্ষরের সঙ্গে সঙ্গে এই অর্থ দেওয়া হবে এবং এটি চলতি বছরের মধ্যে সম্পন্ন হবে বলে আশা করা হচ্ছে।

বিশ্বব্যাপী ইডিসিএফ ঋণ প্রাপ্তির দ্বিতীয় বৃহত্তম দেশ বাংলাদেশ। এ পর্যন্ত কোরিয়া প্রজাতন্ত্র বাংলাদেশের ২৪টি উন্নয়ন প্রকল্পে ইডিসিএফের মাধ্যমে অর্থায়ন করেছে। যার মোট পরিমাণ ১.২ বিলিয়ন মার্কিন ডলার।

নিউজ হান্ট/আরকে

সর্বশেষ