সোমবার, ডিসেম্বর ৬, ২০২১

আলোচনা করেই তেলের দাম ও বাসভাড়া যৌক্তিক পর্যায়ে নেওয়া হয়েছে: প্রধানমন্ত্রী

আরও পড়ুন

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ডিজেলের দাম বাড়লেও দেশের কৃষকরা তা ভর্তুকি মূল্যে পাবেন। অর্থাৎ বর্ধিত দামে কৃষককে ডিজেল কিনতে হবে না। আজ বুধবার (১৭ নভেম্বর) বিকেলে এক সংবাদ সম্মেলনে গণভবন থেকে ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে একথা বলেন তিনি।

শেখ হাসিনা বলেন, অনেকেই ডিজেলের দাম বৃদ্ধির কারণে ক্ষোভ জানাচ্ছেন। কিন্তু আপনারা বলুন সরকারের আয়টা আসবে কোথা থেকে? আমাদের আয়ের উৎস কী? দাম বৃদ্ধির সময়ে বিদেশে ছিলাম বলে যোগাযোগ ছিল না তা কিন্তু না। আমার সাথে আলোচনা করেই দাম যৌক্তিক পর্যায়ে নেওয়া হয়েছে। করোনা মহামারীর পরে বিশ্বের অনেক দেশে খাদ্য নিয়ে হাহাকার রয়েছে, আমাদের দেশে কিন্তু তেমনটা হয়নি।

তিনি বলেন, ‘আমাদের তো তেল কিনে আনতে হয়। আপনারা বলতে পারবেন আমরা কত টাকা ভর্তুকি দিই বছরে? শুধু ডিজেলে আমরা ২৩ হাজার কোটি টাকা ভর্তুকি দিই। বিদ্যুত এবং আনুষঙ্গিক সবকিছু মিলিয়ে ৫৩ হাজার কোটি টাকা ভর্তুকি দিয়ে থাকি। বিদ্যুতে কৃষককে বিশেষ ছাড় দিয়ে থাকি।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, দীর্ঘদিন করোনার কারণে বাস লঞ্চ এসব চলাচল বন্ধ ছিল। যারা এই ব্যবসা করেন তাদেরও তো কষ্ট ছিল, তাদেরও লোকসান ছিল। প্রণোদনা দিয়ে তাদের ব্যবসা যেন চালু থাকে সে ব্যবস্থা নিয়েছি। স্বাভাবিকভাবেই যখন তেলের দাম বেড়েছে তারাও সুযোগ নিয়েছে দাম বাড়ানোর। তাদেরও দাবি ছিল। আমার সঙ্গে আলোচনা চলেছে। সবসময় যোগাযোগ ছিল। তাদের সঙ্গে বৈঠক ও আলোচনার মাধ্যমে একটা সমঝোতায় নিয়ে আসা হয়েছে। বাসের ভাড়া একটা যৌক্তিক পর্যায়ে নিয়ে আসা হয়েছে।

সম্প্রতি গ্লাসগোতে জলবায়ু সম্মেলনে যোগদানের পাশাপাশি যুক্তরাজ্য ও ফ্রান্সে দুই সপ্তাহের সরকারি সফর করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এ সফর সম্পর্কে অবহিত করতেই এ সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা। সেখানে এক প্রশ্নের জবাবে ডিজেলের প্রসঙ্গে কথা বলেন তিনি।

প্রধানমন্ত্রী আরো বলেন, আমাদের প্রাকৃতিক সম্পদ আর কী আছে বলেন? গ্যাসে দেশ নাকি ভাসে। তাই গ্যাস বিক্রি করতে হবে। আমি সেটা করতে চাইনি। গ্যাস বিক্রিতে রাজি হইনি বলে সেবার ক্ষমতায় আসতে পারিনি। আপনারা ভর্তুকির কথা বলছেন। তাহলে বাজেটের সব টাকা ভর্তুকিতেই দিয়ে দিই? এরপরে দেশের কিন্তু আর উন্নতি হবে না। কারণ উন্নয়নের সব টাকা চলে যাবে ভর্তুকিতে।

নিউজ হান্ট/আরকে

সর্বশেষ