সোমবার, অক্টোবর ১৮, ২০২১

আড়াই বছর নেই কমিটি, লক্ষ্মীপুর বিএনপিতে অন্তর্কোন্দল

আরও পড়ুন

লক্ষ্মীপুর থেকে আমজাদ হোসেন আমু: আড়াই বছর (৩০ মাস) কমিটি নেই লক্ষ্মীপুর বিএনপির। চলছে টানা-হেঁচড়ার রাজনীতি। প্রকাশ্যে চলছে গ্রুপিং, কোন্দলের মিছিল মিটিং ও ঘরোয়া রাজনীতি। কোন্দল আর গ্রুপিং করে হিংসা বিদ্বেষে পরিণত হচ্ছে স্থানীয় নেতা-কর্মীগন। তারা নিজ দলের নেতা-কর্মীদের প্রতিপক্ষ মনে করে চলছেন।

প্রতিহিংসা ও গ্রুপিং থেকে নিরসন করতে দলের সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের নির্দেশে গুলশানে জেলা, উপজেলা ও পৌরসভার সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকের মতামতের মাধ্যমে কমিটি ঘোষণা দেয়া হবে। সেই মোতাবেক কমিটির কার্যক্রম চলে। বিভাগীয় নেতারা তাদের লিখিত মতামত নেয়। তবে মতামত নিলেও কমিটি দেয়া হয়নি।

সোমবার সকালে দলের বিভাগীয় সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক হারুনুর রশিদ(ভিপি) জানান, গত বৃহস্পতিবার ঢাকায় বিএনপি চেয়ারপারসনের গুলশানের কার্যালয়ে জেলার দায়িত্বশীল নেতাদের ডাকা হয়। দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য ও চট্টগ্রাম বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতা ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু এবং সাংগঠনিক সম্পাদক মাহবুবুর রহমান শামীমসহ বিষয়টি সমন্বয় করেন। সেখানে জেলার বিভিন্ন শাখার দায়িত্বপ্রাপ্ত ২৭ জন আলাদাভাবে তাদের লিখিত মতামত দেন।

তিনি আরও জানান, গুলশানে যাদের লিখিত মতামত নেয়া হয়েছিল। তাদের মতামতের ভিত্তিতে জেলা বিএনপির কমিটি ঘোষণা করা হবে খুব শিগগির।

সূত্রে আরও জানা যায়, গত বৃহস্পতিবার সকাল ১১টা থেকে তিন ঘণ্টাব্যাপী চলে মতামত কার্যক্রম। মতামত দেন জেলার ছয়টি থানা, চারটি পৌরসভা কমিটির সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক, বিলুপ্ত জেলা কমিটির সহ-সভাপতি, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও সাংগঠনিক সম্পাদকগণ।

মতামত সভায় বিএনপি নেতা শহীদ উদ্দীন চৌধুরী এ্যানি, আবুল খায়ের ভূঁইয়া ও সাহাবুদ্দিন সাবু উপস্থিত ছিলেন না। উপস্থিত ছিলেন লক্ষ্মীপুর

কমলনগর উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক নুরুল হুদা চৌধুরী বলেন, দল দীর্ঘদিন ক্ষমতার বাহিরে থাকায় কমিটির গুরুত্ব অপরিসীম। কমিটির মাধ্যমে দলকে সাংগঠনিকভাবে শক্তিশালী করা যায়। দলকে শক্তিশালী করতে কমিটির জন্য মতামত দিয়েছি। আঠারও মাস জেলা বিএনপি’র কমিটি নেই। নেতাকর্মীরা এখন কেন্দ্রের সিদ্ধান্তের অপেক্ষায় রয়েছে।

জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক প্রার্থী এড. হাসিবুর রহমান বলেন, জেলার বিভিন্ন ইউনিটের ২৭ জন লিখিতভাবে মতামত দিয়েছে। তাদের মতামতের ভিত্তিতে কেন্দ্রীয়ভাবে কমিটি ঘোষণা করা হবে। সাধারণ সম্পাদক প্রার্থী হিসেবে সবার দোয়া চেয়েছি।

জেলা বিএনপির মেয়াদোত্তীর্ণ কমিটি ২০১৯ সালের ৯ মার্চ রাতে বিলুপ্ত ঘোষণা করা হয়। কেন্দ্রীয় বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবীর রিজভী প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে কমিটি বিলুপ্ত করেন। প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, আগামী ৩০ এপ্রিলের মধ্যে আহ্বায়ক কমিটি গঠন করা হবে। কিন্তু বিগত ৩০ মাস।

২০১৭ সাল থেকে সভাপতি, সাধারণ সম্পাদকের স্থানীয় কোন্দলে গ্রুপিং করে আলাদাভাবে দলীয় প্রোগ্রাম চলছে। সভাপতির দলীয় প্রোগ্রামে কেন্দ্রীয় প্রচার সম্পাদক শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানির নেতৃত্ব চলছে। এবং সাধারণ সম্পাদক সাহাবুদ্দিন সাবু নিজের বাসভবনে দলীয় কার্যক্রম চালাচ্ছে। এভাবেই চলছে জেলা বিএনপি’র সরকার হঠানো আন্দোলনের কার্যক্রম।

নিউজ হান্ট/কেএইচ

সর্বশেষ