রবিবার, ডিসেম্বর ৫, ২০২১

ইউরোপে গ্যাস লাইন বন্ধের হুমকি দিলো বেলারুশ

আরও পড়ুন

বেলারুশ-পোল্যান্ড সীমান্তে অভিবাসন প্রত্যাশীদের নিয়ে যে সংকট দেখা দিয়েছে তার জন্য বেলারুশকে দায়ী করে নিষেধাজ্ঞা দিলে এর পাল্টায় মিনস্কও ইউরোপে গ্যাস সরবরাহ বন্ধ করে দিতে পারে বলে হুমকি দিয়েছেন বেলারুশের প্রেসিডেন্ট আলেক্সান্ডার লুকাশেঙ্কো। 

“তারা (ইউরোপ) যদি আমাদের ওপর আরও নিষেধাজ্ঞা দেয়, তাহলে আমরাও জবাব দেবো,” বৃহস্পতিবার এমনটাই বলেছেন তিনি। খবর বিবিসি’র।

ইউরোপে ঢোকার প্রত্যাশায় পোল্যান্ড সীমান্তে অবস্থান করা কয়েক হাজার অভিবাসন প্রত্যাশী এখন তীব্র ঠাণ্ডার মধ্যে খোলা আকাশের নিচে দিন কাটাচ্ছে; এ অভিবাসন প্রত্যাশীদের বেশিরভাগই ইরাক, সিরিয়া ও ইয়েমেন থেকে গেছে।

ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) কর্মকর্তারা বলছেন, বেলারুশ এই অভিবাসন প্রত্যাশীদের ইউরোপে ঢোকানোর লোভ দেখিয়ে পোল্যান্ড সীমান্তে এনে জড়ো করেছে। তবে মিনস্ক প্রথম থেকেই অভিযোগটি অস্বীকার করে আসছে।

বেলারুশকে ‘শিক্ষা দিতে’ ইইউ তাদের ওপর একাধিক নিষেধাজ্ঞা আরোপের কথা ভাবছে।

এর প্রতিক্রিয়ায় বৃহস্পতিবার বেলারুশের দীর্ঘদিনের শাসক লুকাশেঙ্কো রাশিয়ার গ্যাস পাইপলাইন, যেটি বেলারুশ হয়ে ইউরোপীয় ইউনিয়নের দেশগুলোতে গেছে, সেটি নিয়ে ভয় দেখিয়ে বলেন, “আমরা ইউরোপকে গরম রাখি, আর তারা আমাদের হুমকি দেয়। এখন আমরা যদি প্রাকৃতিক গ্যাসের সরবরাহ বন্ধ করে দিই? সেজন্যই পোল্যান্ড, লিথুনিয়ার নেতা ও অন্যান্য নির্বোধদের বলতে চাই- ভেবে তারপর কথা বলবে।”

তার এই হুমকি এমনিতেই গ্যাস সঙ্কট ও গ্যাসের দামবৃদ্ধিতে জর্জরিত ইউরোপের অনেকের মধ্যে নতুন আতঙ্কের সৃষ্টি করেছে।

অক্সফোর্ড ইনস্টিটিউট অব এনার্জি স্টাডিজের কাৎজা ইয়াফিমাভা বলছেন, বেলারুশের প্রেসিডেন্টের হুমকিকে ‘হালকা করে দেখলে’ চলবে না।

Map showing pipelines through Belarus

“ইইউ যদি বেলারুশের ওপর মারাত্মক চাপ সৃষ্টি করে তাহলে হয়তো দেশটি হুমকিটি বাস্তবায়িতও করে ফেলতে পারে,” তেমনটা হলে ইউরোপজুড়ে গ্যাসের দাম হু হু করে বেড়ে যাবে।

তবে ইইউর অর্থনীতি কমিশনার পাওলো গেন্টিলোনি বলেছেন, ২৭ দেশের জোটকে ভয় দেখিয়ে লাভ হবে না।

আর বেলারুশের নির্বাসিত বিরোধীদলীয় নেতা সভেৎলিনা তিখানোভস্কায়া বলেছেন, লুকাশেঙ্কো ‘ধাপ্পা দিচ্ছেন’, গ্যাস সরবরাহ বন্ধের ক্ষমতা তার নেই।

নিউজ হান্ট/এএস

সর্বশেষ