মঙ্গলবার, ডিসেম্বর ৭, ২০২১

ইতালিকে হতাশায় ডুবিয়ে বিশ্বকাপে সুইজারল্যান্ড

আরও পড়ুন

দু-দলের পয়েন্ট সমান থাকলেও গোল ব্যবধানে এগিয়ে থাকায় সুযোগ বেশি ছিল ইতালির। প্রতিপক্ষের মাঠে জয় পেলেই বিশ্বকাপ টিকিট নিশ্চিত হয়ে যেত আজ্জুরিদের। কিন্তু, সেই সুযোগ কাজে লাগাতে পারেনি দলটি। সুইজারল্যান্ড নিজেদের খেলায় জিতলেও উত্তর আয়ারল্যান্ডকে হারাতে না পারায় আবারও বিশ্বকাপের সরাসরি মূলপর্ব খেলার সুযোগ হাতছাড়া করল চারবারের বিশ্বচ্যাম্পিয়নরা।

উইন্ডসর পার্কে সোমবার রাতে ইউরোপ অঞ্চলের বাছাইয়ে ‘সি’ গ্রুপে নর্দার্ন আয়ারল্যান্ডের সঙ্গে গোলশূন্য ড্র করেছে ইতালি। আর বুলগেরিয়ার মাঠে ৪-০ গোলে জিতে বাজিমাত করেছে সুইজারল্যান্ড।

প্রথমার্ধে ৭০ শতাংশের বেশি সময় বল দখলে রেখে একচেটিয়া আক্রমণ করে যায় ইতালি। তবে প্রতিপক্ষের জমাট রক্ষণে খুব বেশি নিশ্চিত সুযোগ তৈরি করতে পারেনি তারা। এই সময়ে চারটি শট নিয়ে সবকটিই লক্ষ্যে রাখতে পারে দলটি, কিন্তু জালের দেখা মেলেনি।

দ্বিতীয়ার্ধের পঞ্চম মিনিটে উল্টো পিছিয়ে পড়তে বসেছিল ইতালি। তবে ১০ গজ দূর থেকে জর্জ স্যাভিলের শট দারুণ রিফ্লেক্সে ঠেকিয়ে দলকে সমতায় রাখেন গোলরক্ষক জানলুইজি দোন্নারুম্মা।

প্রায় একই সময়ে বুলগেরিয়ার বিপক্ষে নোয়া ওকাফোরের গোলে এগিয়ে যায় সুইসরা। খানিক পর সেখানে রুবেন ভার্গাসের গোলে ব্যবধান দ্বিগুণ করে সুইজারল্যান্ড।

দৃশ্যপটে পরিবর্তন আনতে গোল করতেই হতো ইতালির। ৬৪তম মিনিটে আরেকটি সুযোগ নষ্ট হয় তাদের। পেনাল্টি স্পটের কাছ থেকে ফেদেরিকো চিয়েসার দূরের পোস্টে নেওয়া শট চলে যায় বাইরে।

এদিকে ইতালির সুযোগ নষ্ট আর ওদিকে সুইজারল্যান্ড এগিয়ে যায় ৩-০ ব্যবধানে। তাদের তৃতীয় গোলটি করেন সেদ্রিক। এ অবস্থায় ইতালির কেবল জিতলেই হতো না। ব্যবধান রাখতে হতো অন্তত দুই গোলের। কিন্তু কিছুই পারল না তারা।

৮১তম মিনিটে উল্টো গোল হজম করা থেকে বেঁচে যায় ইতালি। ডি-বক্সের মুখে বিনা বাধায় স্টুয়ার্ট ডালাসের নেওয়া শট দূরের পোস্টের বাইরে দিয়ে চলে যায়।

নির্ধারিত সময়ের শেষ মিনিটে অফসাইডের ফাঁদ ভেঙে এবং গোলরক্ষককে এড়িয়ে শট নেন কনর ওয়াশিংটন। সময়মতো গোললাইনে গিয়ে বিব্রতকর হার এড়ান ডিফেন্ডার লিওনার্দো বোনুচ্চি।

অন্যদিকে, ঘরের মাঠে রেমো ফ্রয়লারের গোলে বিশ্বকাপে ওঠার উপলক্ষটা আরও রঙিন করে সুইজারল্যান্ড। তবে ইতালির বিশ্বকাপে খেলার আশা অবশ্য একেবারে শেষ হয়ে যায়নি। সেজন্য তাদের পাড়ি দিতে প্লে-অফের কঠিন পথ।

ইউরোপ অঞ্চলের বাছাইয়ে ১০ গ্রুপের শীর্ষ ১০ দল সরাসরি পাবে কাতার বিশ্বকাপের টিকেট। ১০ গ্রুপের রানার্সআপ ও নেশন্স লিগের সেরা দুই গ্রুপ জয়ী মিলে ১২ দলের প্লে-অফে ইউরোপ থেকে আরও তিনটি দল সুযোগ পাবে বিশ্বকাপে খেলার।

নিউজ হান্ট/ইস

সর্বশেষ