বুধবার, ডিসেম্বর ১, ২০২১

এবারও জামিন হলো না আরিয়ানের

আরও পড়ুন

তিন দফায় নিম্ন আদালতে আবেদন করে জামিন না পেয়ে অবশেষে হাইকোর্টের দারস্থ হয়েছিলেন শাহরুখ খানের ছেলে আরিয়ান খান। মঙ্গলবার হাইকোর্টে তার জামিন শুনানি ছিল। কিন্তু এদিন স্থগিত রইল শাহরুখপুত্রের জামিনের শুনানি। প্রায় এক ঘণ্টা ধরে বোম্বে হাইকোর্টে রাষ্ট্রপক্ষ ও আসামিপক্ষের সওয়াল জবাব চলে। এরপর বিচারক নিতিন সাম্বর জানিয়ে দেন, বুধবার দুপুর আড়াইটায় ফের আরিয়ানের মামলার শুনানি হবে।

মঙ্গলবার আরিয়ানের জামিনের বিরোধিতা করে মাদক নিয়ন্ত্রক সংস্থা (এনসিবি)জানায় যে, তার সঙ্গে আন্তর্জাতিক মাদক চক্রের যোগাযোগ রয়েছে। তিনি মাদকদ্রব্য সেবনের পাশাপাশি কেনা-বেচাও করেন। তাই আরিয়ান জামিন পেলে তিনি সাক্ষীদের প্রভাবিত করতে পারেন। খবর আনন্দবাজারের

গত রবিবার মাদক এই মামলার সাক্ষী তার বয়ান পরিবর্তন করেছেন। এনসিবির তরফ থেকে দাবি করা হয় যে, আরিয়ান তদন্তকে প্রভাবিত করতে পারেন। তথ্য লোপাটেরও আশঙ্কা প্রকাশ করেছে এনসিবি। এমনকি শাহরুখ খানের ম্যানেজার পূজা দাদলানির বিরুদ্ধেও সাক্ষীকে প্রভাবিত করার অভিযোগ এনেছে কেন্দ্রীয় সংস্থাটি।

মঙ্গলবার আদালতে আরিয়ানের আইনজীবী সাবেক অ্যাটর্নি জেনারেল মুকুল রোহাতগি আরিয়ানের সপক্ষে বলেন, ‘ইভেন্ট ম্যানেজার প্রতীক গাবার আমন্ত্রণে মাদক পার্টিতে গিয়েছিলেন আরিয়ান। একটি বিজ্ঞাপনের কারণে ২ অক্টোবর প্রতীকের অনুরোধে ওই পার্টিতে যান আরিয়ান ও আরবাজ। পার্টি শুরু করার আগেই আটক করা হয় তাদের। সেদিন আরিয়ানের কাছ থেকে কোনো রকমের মাদক পায়নি এনসিবি। তাই আরিয়ানকে গ্রেপ্তার করার কোনো কারণই ছিল না এনসিবির কাছে।’

‘তা সত্ত্বেও ৩ অক্টোবর গ্রেপ্তার করা হয় আরিয়ানকে। রেকর্ড করা হয় তার স্টেটমেন্ট। তারপর আরিয়ান খানের কোনোরকম মেডিকেল টেস্ট করা হয়নি। মেডিকেল টেস্ট ছাড়া কীভাবে মাদক মামলা ফাইল করা সম্ভব! এর আগে অনেক পিটিশনে আমরা আবেদন করি, কিন্তু তা খারিজ হয়ে যায়। আরবাজের জুতা থেকে ছয় গ্রাম মাদক পাওয়া গেছে, তার জন্য আরিয়ানকে দায়ী করা সঠিক নয়।’

‘পাশাপাশি এফআইআর শিটে মোবাইল বাজেয়াপ্ত করার কোনো উল্লেখই নেই। অথচ আটক করার পরই মোবাইল বাজেয়াপ্ত করা হয়েছে আরিয়ানের। মাদক নয়, শুধুমাত্র ষড়যন্ত্র করার অভিযোগে আরিয়ানকে গ্রেপ্তার করেছে এনসিবি।’

গত ২ অক্টোবর মাদক পার্টি থেকে আটক করা হয়েছিল আরিয়ানকে। দীর্ঘ ১৬ ঘণ্টা জেরার পর পরদিন এনসিবি তাকে গ্রেপ্তার দেখায়। দুই দফায় জামিন খারিজের পর এনসিবি হেফাজত থেকে গত ৮ অক্টোবর জেল হেফাজতের নির্দেশ দেয় ম্যাজিস্ট্রেট কোর্ট। তারপর থেকেই আর্থার রোড জেলে বন্দি আরিয়ান খান।

সর্বশেষ