বুধবার, ডিসেম্বর ১, ২০২১

খেলাপি ঋণ আবারো ১ লাখ কোটি টাকা ছাড়াল

আরও পড়ুন

খেলাপি কমাতে ঋণ পরিশোধের জন্য নানা রকম সুবিধা দিচ্ছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। তারপরও কমছে না খেলাপি ঋণ। উল্টো বেড়েই চলছে খেলাপির পরিমাণ। চলতি বছরের তৃতীয় প্রান্তিকে ব্যাংকিং খাতের খেলাপি ঋণ এক লাখ কোটি টাকা ছাড়িয়ে গেছে।

মঙ্গলবার (২৩ নভেম্বর) বাংলাদেশ ব্যাংকের খেলাপি ঋণ সংক্রান্ত সেপ্টেম্বর প্রান্তিকের হালনাগাদ প্রতিবেদনে এসব তথ্য উঠে এসেছে।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সর্বশেষ হালনাগাদ প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, চলতি বছরের সেপ্টেম্বর মাস শেষে ব্যাংকিং খাতের মোট ঋণ স্থিতি দাঁড়িয়েছে ১২ লাখ ৪৫ হাজার ৩৯১ কোটি ৫৮ লাখ টাকা। এর মধ্যে এক লাখ এক হাজার ১৫০ কোটি টাকা খেলাপিতে পরিণত হয়েছে। যা মোট ঋণের ৮ দশমিক ১২ শতাংশ। করোনার শুরুর বছর ২০২০-এর ডিসেম্বরে খেলাপি ঋণ ছিল ৮৮ হাজার ৭৩৪ কোটি টাকা, যা মোট ঋণের ৭ দশমিক ৬৬ শতাংশ। সে হিসাবে চলতি বছরের প্রথম ৯ মাসে খেলাপি ঋণ বেড়েছে ১২ হাজার ৪১৬ কোটি টাকা।

করোনা মহামারিতে অর্থনৈতিক প্রভাব মোকাবিলায় গত বছর ঋণ গ্রহীতারা কোনো টাকা পরিশোধ না করলেও তাকে খেলাপি দেখাতে পারেনি ব্যাংক। বাংলাদেশ ব্যাংক আগামী ডিসেম্বর পর্যন্ত ঋণ পরিশোধে একরকম ছাড় দিয়ে রেখেছে।

এই ছাড়ের কারণে চলতি বছর একজন গ্রাহকের যে পরিমাণ ঋণ পরিশোধ করার কথা, আগামী ডিসেম্বরের মধ্যে তার ২৫ শতাংশ পরিশোধ করলেও তাকে আর খেলাপি করা যাবে না। এরপরও খেলাপি ঋণ বাড়ছে।

২০১৯ সালে যেসব ঋণখেলাপি ব্যবসায়ী এককালীন টাকা জমা দেওয়ার আশ্বাসে ঋণ নিয়মিত করেছিলেন, ঋণ পরিশোধে তাদের নতুন করে আবারও সময় দিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। তারা আগামী ডিসেম্বরের মধ্যে ঋণ পরিশোধের সুযোগ পাবেন। এ সময় নতুন করে খেলাপি করা যাবে না।

এ প্রসঙ্গে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সাবেক গভর্নর সালেহ উদ্দিন আহমেদ বলেন, ‘বাণিজ্যিক ব্যাংকের পরিচালক বোর্ড এবং কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নজরদারির অভাবে ব্যাংক খাতে নন-পারফর্মিং লোনের পরিমাণ বেড়েই চলেছে। প্রায় সকল বড় ঋণ বিতরণে রাজনৈতিক সংশ্লিষ্টতা থাকায়; ঋণগ্রহীতারা খেলাপি হওয়ার পরোয়া করেন না। কারণ, তাদের জানা আছে আদালত তাদের ঋণ আদায়ে কোনো ব্যবস্থা নেবে না।’

তিনি আরও বলেন, ঋণ খেলাপিরা কেন্দ্রীয় ব্যাংকের বিভিন্ন প্যাকেজ ও সুবিধা ঘোষণার অপেক্ষা করছেন। মহামারির কারণে কেন্দ্রীয় ব্যাংক অনেক ধরনের সুবিধা ঘোষণা করেছিল। এবছর অনেক সুবিধা প্রত্যাহার করা হয়। কিন্তু, ঋণ খেলাপিরা মনে করছেন, তারা পরিশোধ না করলে কেন্দ্রীয় ব্যাংক আরও ছাড় দেবে।

নিউজ হান্ট/ম

সর্বশেষ