শনিবার, অক্টোবর ২৩, ২০২১

নাটোর জেলা ক্রীড়া সংস্থার শূন্য পদে নির্বাচনের দাবি

আরও পড়ুন

নাটোর প্রতিনিধি: নাটোর জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক সহ কার্য নির্বাহীর শূন্য ১১পদে নির্বাচনের দাবি জানিয়েছেন বিভিন্ন ক্লাবের ১২ কাউন্সিলর। সম্প্রতি নির্বাচনের দাবি জানিয়ে জেলা ক্রীড়া সংস্থার ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম সিরাজের কাছে চিঠিও পাঠিয়েছেন তারা।

নাটোর শহরের ফুলবাগান ক্রিকেট ক্লাবের শরিফুল ইসলাম মিন্টু ও নাটোর জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক বরাবর আবেদনে বলা হয়, গত ২০২০সালের ১৭নভেম্বর জেলা ক্রীড়া সংস্থা থেকে সাধারণ সম্পাদক পদত্যাগ করেন সৈয়দ মোস্তাক আলী মুকুল। এছাড়া সহ সভাপতি পদে দুইজন, কোষাধক্ষ্য পদে একজন এবং সদস্য পদে সাতজন। এই অবস্থায় জেলা ক্রীড়া সংস্থার সকল খেলাধুলায় ঝিমিয়ে পড়েছে। সচেতন কাউন্সিলর হয়ে এই অবস্থা থেকে মুক্তি পেতে চান তারা।

আবেদন পত্রে আরও বলা হয়, ক্লাব কর্মকর্তারা বিভিন্ন খেলায় অংশগ্রহনের জন্য সারা বছর অনেক টাকা খরচ ও পরিশ্রম করে খেলোয়াড়দের লালন-পালন করে থাকে। কিন্তু নাটোর জেলা ক্রীড়া সংস্থা বর্তমানে অচল অবস্থার কারনে খেলাধুলা নিয়মিত না থাকায় ক্ষতির সম্মূখীন হচ্ছে। আগামী দিনে খেলোয়াড় ধওে রাখা এবং জেলা ক্রীড়া সংস্থার বিভিন্ন খেলায় অংশগ্রহন করা সমস্যার কারণ হবে। এই অবস্থায় গঠণতন্ত্রেও বিধান মতে অতিশীঘ্রই জেলা ক্রীড়া সংস্থার কার্যনির্বাহী পরিষদেও শূণ্যপদে নির্বাচন দেওয়ার জন্য ১২কাউন্সিলর জোর দাবী জানান।

চিঠিতে নাটোর শহরের বিভিন্ন ক্লাব ও সংগঠনের ১২জন কাউন্সিলর স্বাক্ষর করেন।

এবিষয়ে জানতে জেলা ক্রীড়া সংস্থার ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক ও স্থানীয় সাংসদ সদস্য শিমুলের ভাই, সিরাজুল ইসলাম সিরাজের সেল ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, পূর্বের জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ মোস্তাক আলী মুকুল হিসাব-নিকাশ জমা না দিয়ে পদত্যাগ করেছেন। ওই হিসাব ছাড়া নির্বাচন দেয়া হলে আর্থিক আয়-ব্যায়ের বিষয়টি নিয়ে জটিলতা হবে। এই জন্য আমরা তাকে হিসাব দেয়ার জন্য চিঠি দিয়েছি। চিঠিতে কাজ না হলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার কথাও বলেন তিনি।

এ ব্যাপারে জেলা ক্রীড়া সংস্থার অফিস সহকারী শামছুজ্জামান সুমন আবেদন পাওয়ার বিষয়ে সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, সাধারণ সম্পাদককে বিষয়টি জানানো হয়েছে। সংস্থার সভাপতি ঢাকায় অবস্থান করার কারনে নাটোরে এসে দেখবেন।

জেলা ক্রীড়া সংস্থার সভাপতি ও জেলা প্রশাসক শামীম আহমেদ জানান, আমি ঢাকায় অবস্থান করার কারনে চিঠির বিষয়ে আমার জানা নেই। তবে আমি যোগদানের পর জেলা ক্রীড়া সংস্থার সদস্যদের পদত্যাগের বিষয়টি জেনেছি।

গঠণতন্ত্রে ৯০দিনের মধ্যে নির্বাচনের বাধ্যবাধকতা থাকলেও নির্বাচন না দেওয়ায় গঠণতন্ত্র অবমাননা হয়েছে কিনা এমন প্রশ্নে জেলা প্রশাসক বলেন, আমি যোগদানের আগেই সে সময় পার হয়েছে। তবে খুব শীঘ্রই গঠণতন্ত্র অনুযায়ী নির্বাচনের ব্যবস্থা করা হবে।

নিউজ হান্ট/আরকে

সর্বশেষ