সোমবার, ডিসেম্বর ৬, ২০২১

পটুয়াখালী মহিলাদলের সম্মেলনে হাতাহাতি, পুলিশের লাঠিচার্জ

আরও পড়ুন

পটুয়াখালী থেকে মো: জাকির হোসেন: পটুয়াখালীতে জেলা মহিলা দলের সম্মেলন চলাকালীন সময়ে মঞ্চে ফুল দেয়াকে কেন্দ্র করে যুবদল ও মৎস্যজীবিদলের নেতাকর্মীদের মধ্যে দফায় দফায় হাতাহাতি ও ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। এক পর্যায়ে পুলিশ লাঠিচার্জ করে ছত্রভঙ্গ করে দিলে অন্তত ৩জন আহত হয়।

বুধবার দুপুর বারোটার দিকে শহরের সেন্টারপাড়ার বধুয়া কমিউনিটি সেন্টারের ভিতরে ও বাইরে এ ঘটনা ঘটে। ঘটনার সময় মঞ্চে কেন্দ্রীয় মহিলা দলের সভাপতি আফরোজা আব্বাস ও সেক্রেটারি সুলতানা আহমেদসহ বরিশাল বিভাগীয় নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

অতিথিদের ফুল দিয়ে বরণ করার সিরিয়াল নিয়ে জেলা মৎস্যজীবী দলের আহবায়ক ভিপি শাহিনের সাথে পৌর যুবদলের আহবায়ক আকরাম শিকদারের প্রথমে কথা কাটাকাটি হয়। এক পর্যায়ে পরিবেশ উত্তপ্ত হলে উভয়ের কর্মী সমর্থকরা হাতাহাতিতে জড়িয়ে পরে।

প্রায় ২০মিনিট ধরে দফায় দফায় এ অবস্থা চলতে থাকলে এক পর্যায়ে পুলিশ লাঠিচার্জ করে সবাইকে সরিয়ে দেয়। এ ঘটনায় অভি, অপু ও সজল নামের যুব ও মৎস্যজীবী দলের তিনজন কর্মী আহত হয়েছেন। এরপর সম্মেলনের কার্যক্রম চালিয়ে যান জেলার নেতৃবৃন্দরা।

ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে মৎস্যজীবিদলের আহবায়ক মোঃ শাহিন মিয়া জানান, জেলা কমিটির সদস্য সচিব শুধু অঙ্গ সংগঠনের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদককে হল থেকে বের হয়ে যেতে নির্দেশ দেয়ার পর সেটা বাস্তবায়ন করতে গিয়ে হলের ভিতরে পৌর যুবদলের আহবায়ক আকরাম শিকদারের সাথে বাকবিতণ্ডা থেকে হাতাহাতি হয়। পরবর্তীতে নেতৃবৃন্দের হস্ত:ক্ষেপে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসলেও আকরাম শিকদার পরবর্তীতে অন্য নেতাকর্মীদের সাথে আমার সাথে ঘটে যাওয়া ঘটনার প্রতিবাদ করলে তাদের সাথেও অশোভন আচরণ করেন।

আর পৌর যুবদলের আহবায়ক আকরাম শিকদার জানান, এত বড় অনুষ্ঠানে পোলাপানের মধ্যে টুকিটাকি কিছু হওয়া কোন বিষয় নয়।

জেলা মহিলা দলের অধ্যাপিকা লায়লা ইয়াসমীন তালুকদারের সভাপতিত্বে সম্পাদিকা জেসমিন জাফর ও সাংগঠনিক সম্পাদক ফারজানা রুমার সঞ্চালনায় সম্মেলনে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন মহিলা দলের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি আফরোজা আব্বাস।

সম্মেলনে উদ্বোধক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি ও বরিশাল বিভাগীয় আহবায়ক জীবা আমিনা আল গাজী।

এ সময় প্রধান অতিথির বক্তব্যে আফরোজা আব্বাস বলেন, আওয়ামীলীগ হামলা মামলার রাজনীতি করে। তারা প্রশাসন ছাড়া এক পাও চলতে পারে না। আওয়ামী লীগ কিছু পারুক আর না পারুক তবে জনগণকে অত্যাচার উপহার দিতে পারে।

এসময় অন্যান্যদের মদ্যে আরও বক্তব্য রাখেন, কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদিকা সুলতানা আহমেদ, জেলা বিএনপির সভাপতি আব্দুর রশিদ চুন্নু মিয়া, জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক স্নেহাংশু সরকার কুট্টি, জেলা মহিলা দলের সভাপতি অধ্যাপিকা লায়লা ইয়াসমিন তালুকদার, কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদিকা এলিজা জামান।

এছাড়াও জেলা বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের কয়েক শত নেতাকর্মী সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন। সম্মেলন শেষে আফরোজা বেগম সীমাকে সভাপতি এবং ফারজানা ইয়াসমিন রুমাকে সাধারণ সম্পাদক হিসাবে ঘোষণা দিয়ে আগামী পনের দিনের মধ্যে একটি পূর্ণাঙ্গ কমিটি করার নির্দেশ দেয়া হয়।

নিউজ হান্ট/কেএইচ

সর্বশেষ