বৃহস্পতিবার, জানুয়ারি ২০, ২০২২

পুলিশের ওপর কিশোর গ্যাঙয়ের হামলা, দুই কনস্টেবল আহত

আরও পড়ুন

ভোলা থেকে আকতারুল ইসলাম আকাশ: ভোলায় পুলিশের উপর একটি কিশোর গ্রুপের অতর্কিত হামলার ঘটনা ঘটেছে। শনিবার ভোলা সদর উপজেলার ইলিশা লঞ্চঘাটে এ ঘটনা ঘটে।

এ ঘটনায় ইলিশা পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের দুই পুলিশ কনস্টেবল গুরুতর আহত হয়েছেন। আহত ওই দুই পুলিশ কনস্টেবল হলেন, মো. রাসেল (২৭) ও অমিত (২৮)।

ইলিশা পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের উপ-পরিদর্শক (এসআই) মো. শেখ ফরিদ উদ্দিন জানান, বিশ থেকে পঁচিশ সদস্যের একটি কিশোর গ্রুপ সন্ধ্যা সাতটার দিকে মনপুরা থেকে তাসরিফ-১ লঞ্চ যোগে ভোলার ইলিশা লঞ্চঘাটে এসে পৌঁছয়। এ সময় এক কিশোরের সাথে ওই লঞ্চের এক স্টাফের সাথে কিশোরের হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। একপর্যায়ে লঞ্চে থাকা অন্যান্য কিশোররাও এ ঘটনায় জড়িয়ে পড়েন।

লঞ্চঘাটে দায়িত্বে থাকা ইলিশা পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ওই দুই কনস্টেবল উত্তেজিত কিশোরদের থামাতে যায়। এ সময় কিশোররা ওই দুই পুলিশ কনস্টেবলের উপরও হামলা চালায়।

খবর পেয়ে ইলিশা পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের উপ-পরিদর্শক শেখ ফরিদ উদ্দিন অতিরিক্ত ফোর্স নিয়ে ঘটনাস্থলে উপস্থিত হন। এসময় স্থানীয়দের সহযোগিতায় কিশোর গ্রুপের ২০ জনকে আটক করে ইলিশা পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রে নিয়ে আসা হয়। তাৎক্ষণিকভাবে আটককৃত কিশোরদের নাম জানা যায়নি।

শেখ ফরিদ উদ্দিন আরও জানান, কনস্টেবল রাসেল ও অমিত এর উপর হামলার একপর্যায়ে ওই কিশোররা মোবাইল ফোনের মাধ্যমে ভোলা শহর থেকে আরও ৫০ থেকে ৬০ জন কিশোরকে ঘটনাস্থলে নেয়। এসময় পুলিশ তাদেরকে ছত্রবঙ্গ করে দেন। আহত ওই দুই কনস্টেবল ভোলা সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন।

পরে খবর পেয়ে ভোলা সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি এনায়েত হোসেন ও ওসি (তদন্ত) আরমান হোসেন অতিরিক্ত ফোর্স নিয়ে রাত ৮টার দিকে ইলিশা পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রে যান। এসময় ওই ২০ কিশোরকে পুলিশের গাড়িতে করে ভোলা সদর মডেল থানায় নেওয়া হয়।

ভোলা সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি এনায়েত হোসেন জানান, আটককৃত সকল কিশোরদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

নিউজ হান্ট/কেএইচ

সর্বশেষ

শাবিপ্রবি: ২০ ঘণ্টা ছাড়িয়ে গেছে ২৪ শিক্ষার্থীর অনশন

বিদায় নিচ্ছেন সানিয়া মির্জা

করোনায় একদিনে বিশ্বে ৩২ লাখ শনাক্ত

সন্তান ধারনে এইডস আক্রান্ত নারীর ঝুঁকি অনেক বেশি

কর্মবিরতির হুমকি রেল কর্মীদের