রবিবার, অক্টোবর ১৭, ২০২১

প্যান্ডোরা পেপারসে নাম শচীন-গার্দিওলারও

আরও পড়ুন

অনুসন্ধানী সাংবাদিকদের আন্তর্জাতিক জোট আইসিআইজে’র ফাঁস করা প্যান্ডোরা পেপারসে নাম এসেছে ভারতীয় ক্রিকেট কিংবদন্তী শচীন টেন্ডুলকার ও ফুটবল কোচ পেপ গার্দিওলার। গতকাল প্রকাশিত হয় বিশ্বের গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিদের বিদেশে গোপন সম্পদ গড়ার বিপুল তথ্য।

২০১৩ সালে ক্রিকেট থেকে অবসর নেয়ার পর ভারতীয় পার্লামেন্টের উচ্চকক্ষ রাজ্যসভার সদস্য ছিলেন শচীন টেন্ডুলকার। যে কারণে পলিটিক্যাল এক্সপোসড পারসনের (পিইপি) এক রেজিস্ট্রিতে তার নাম উচ্চ ঝুঁকির তালিকায় রাখা হয়েছে।

ফাঁস হওয়া প্যান্ডোরা পেপারসে শচীনের স্ত্রী অঞ্জলি টেন্ডুলকার ও শ্বশুর আনন্দ মেহতার নামও রয়েছে। ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসের খবরে বলা হয়েছে, ব্রিটিশ ভার্জিন আইল্যান্ডের একটি প্রতিষ্ঠানে গোপনে বিনিয়োগ করেছিল শচীনের পরিবার। প্যান্ডোরা পেপারসের নথিতে বলা হয়েছে, ২০১৬ সালে বিনিয়োগের টাকা তুলে নিয়েছেন শচীন ও তার পরিবার।

আইসিআইজে প্রকাশিত প্যান্ডোরা পেপারসে বলা হয়েছে, ব্রিটিশ ভার্জিন আইল্যান্ডের প্রতিষ্ঠানে শচীন টেন্ডুলকারের শেয়ার ছিল ৯টি। তার স্ত্রী অঞ্জলির ১৪ ও আনন্দ মেহতার ৫টি শেয়ার ছিল।

শচীনের শেয়ারের মূল্য ছিল ৮ লাখ ৫৬ হাজার ৭০২ ডলার। এ ছাড়া তার স্ত্রী অঞ্জলির ১৩ লাখ ৭৫ হাজার ৭১৪ ডলার মূল্যের শেয়ার ছিল। তার বাবা আনন্দ মেহতার শেয়ার ছিল ৫ লাখ ৫৩ হাজার ৮২ মার্কিন ডলার মূল্যের।

ভারতীয় কিংবদন্তী এ ক্রিকেটারের বিদেশি বিনিয়োগের কথা স্বীকার করেছেন তার আইনজীবী। তিনি বলেন, শচীনের কোনো বিনিয়োগ গোপন নয়। প্রতিটি বিনিয়োগই বৈধ এবং তা এলআরএস’র আওতায় কর কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে।

প্যান্ডোরা পেপারসে শচীনের পাশাপাশি নাম এসেছে ফুটবল ক্লাব ম্যানচেস্টার সিটির কোচ পেপ গার্দিওলার নামও। এতে বলা হয়েছে, তিনি অ্যান্ডোরার একটি অঘোষিত অ্যাকাউন্টে ৫ লাখ ইউরো গোপন করেছিলেন। স্প্যানিশ ট্যাক্স অ্যাজেন্সির কর্মকর্তা ক্রিস্টোবল মন্টোরো কর্তৃক তার ১০ শতাংশ কর ধার্য ছিল।

লা সেক্সটা এবং এল পাইসের মতে, গার্দিওলা ২০১২ সাল পর্যন্ত অ্যান্ডোরার ওই অ্যাকাউন্ট চালু রেখেছিলেন। এ ক্ষেত্রে তিনি মারিয়ানো রাজ্য সরকার কর্তৃক তার আর্থিক পরিস্থিতি নিয়মিত করার জন্য চালু করা কর ক্ষমার সুবিধা গ্রহণ করেছিলেন। এ সময় পর্যন্ত তিনি স্প্যানিশ ট্যাক্স অ্যাজেন্সিকে কোনো হিসাব দেননি।

গার্দিওলার ঘনিষ্ঠ একটি সূত্র জানিয়েছে, তার অ্যাকাউন্টটি ব্যাঙ্কা প্রিভাদা ডি’অন্দোরার অন্তর্গত। ২০০৩ থেকে ২০০৫ সাল পর্যন্ত সৌদির ফুটবল ক্লাব আল-আহলি থেকে বেতনও নিয়েছেন তিনি।

এ ব্যাপারে গার্দিওলা বলেন, আমি বিশ্বাস করি ফার্নান্দেজ ডিয়াজ কিছু ভুল করেছেন। আমি প্রথম দিন থেকে শেষ পর্যন্ত কর প্রদান করেছি।

নিউজ হান্ট/আরকে

সর্বশেষ