সোমবার, ডিসেম্বর ৬, ২০২১

‘প্রশ্নফাঁসে বাংলাদেশ ব্যাংকের কেউ জড়িত নয়’

আরও পড়ুন

ব্যাংকার্স সিলেকশন কমিটি সচিবালয়ের (বিএসসিএস) আওতায় ৬ নভেম্বর সরকারি পাঁচটি ব্যাংকের অফিসার (ক্যাশ) পদে নিয়োগ পরীক্ষার প্রশ্নফাঁসের সঙ্গে বাংলাদেশ ব্যাংকের কোনো কর্মকর্তার সংশ্লিষ্টতার ‘প্রমাণ পাওয়া যায়নি’।

বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ ব্যাংকের মহাব্যবস্থাপক ও সহকারী মুখপাত্র জিএম আবুল কালাম আজাদের সই করা এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ দাবি করা হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে বাংলাদেশ ব্যাংক জানায়, গত ৬ নভেম্বর ব্যাংকার্স সিলেকশন কমিটি সচিবালয়ের (বিএসসিএস) আওতায় আহছানউল্লা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ৫টি ব্যাংকের অফিসার (ক্যাশ) পদে নিয়োগ পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়।

তবে এই পরীক্ষার প্রশ্নফাঁসের অভিযোগ ওঠে, যার প্রেক্ষিতে বিএসসিএস কর্তৃক ওই পরীক্ষা বাতিল করা হয় এবং একই কেন্দ্রে অনুষ্ঠিতব্য বিএসসিএসর আরও দুটি পরীক্ষা স্থগিত করা হয়েছে। একই সঙ্গে বিশ্ববিদ্যালয়কে ভবিষ্যতে এ ধরনের পরীক্ষা পরিচালনার সুযোগ না দিতে কালো তালিকাভুক্ত করা হয়েছে।

ওই পরীক্ষায় প্রশ্নফাঁসের সঙ্গে প্রাথমিকভাবে চিহ্নিত ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী কর্তৃক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। এ বিষয়ে অধিকতর তদন্ত কার্যক্রম চলমান রয়েছে। তবে ওই প্রশ্নফাঁসের সঙ্গে বাংলাদেশ ব্যাংকের কোনো কর্মকর্তার সংশ্লিষ্টতার প্রমাণ পাওয়া যায়নি।

বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, উল্লেখিত পরীক্ষায় কেউ জড়িত না থাকলেও বাংলাদেশ ব্যাংকের জন্য ‘সিসিটিভি অপারেটর’ পদে গত বছরের ১৬ অক্টোবর অনুষ্ঠিত লিখিত পরীক্ষায় অনিয়মের বিষয়ে অভিযোগ আসে। চলতি বছরের ১৩ জুন এর প্রেক্ষিতে প্রাথমিকভাবে ব্যাংকের যুগ্মপরিচালক আবদুল্লাহ আল মাবুদ এবং মো. আলমাছ আলীকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়। এছাড়া অভিযোগের সার্বিক বিষয়টি এখনও তদন্তাধীন রয়েছে।

তদন্ত কার্যক্রম সম্পন্ন হবার পর অভিযোগ প্রমাণিত হলে সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে যথাযথ প্রশাসনিক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

গত ১০ নভেম্বর বিকালে ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) গণমাধ্যম ও জনসংযোগ বিভাগে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে ডিএমপির অতিরিক্ত কমিশনার (ডিবি) এ কে এম হাফিজ আক্তার জানান, পাঁচটি ব্যাংকে অফিসার (ক্যাশ) পদে এক হাজার ৫১১ জন জনকে নিয়োগ দিতে ৬ নভেম্বর বিকালে পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়।

বাংলাদেশ ব্যাংকের ব্যাংকার সিলেকশন কমিটির মাধ্যমে প্রশ্নপত্র তৈরি ও এই পরীক্ষা সম্পাদনের দায়িত্বে ছিল আহছানউল্লা ইউনিভার্সিটি অব সাইন্স অ্যান্ড টেকনোলজি। পরীক্ষার প্রশ্ন ফাঁস হবে ৫ নভেম্বর রাতে, এমন তথ্য আসে ডিবির কাছে। ডিবির টিমের সদস্যরা ছদ্মবেশে পরীক্ষার্থী সেজে ৬ নভেম্বর সকাল সাতটার দিকে প্রশ্নপত্রসহ উত্তর পাওয়ার জন্য চক্রের সদস্যদের সঙ্গে যোগাযোগ করেন।

অগ্রিম টাকা পরিশোধের পর প্রশ্নপত্র ও উত্তরপত্র ফাঁস চক্রের অন্যতম হোতা রাইসুল ইসলাম স্বপন ডিবির ছদ্মবেশী পরীক্ষার্থীকে নিয়ে যান। এরপর পরীক্ষার উত্তরপত্রসহ স্বপনকে হাতেনাতে আটক করা হয়।

গত ৬ নভেম্বর পরীক্ষায় আসা প্রশ্নের সঙ্গে সকালে পাওয়া প্রশ্ন ও উত্তর হুবহু মিলে গেলে স্বপনের দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে রূপালী ব্যাংকের সাভার শাখার শ্রীনগর থেকে জানে আলম মিলনকে গ্রেফতার করা হয়।

রূপালী ব্যাংকের সিনিয়র অফিসার জানে আলম মিলনের দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে প্রশ্নপত্র ও উত্তরপত্র সরবরাহকারী শামসুল হক শ্যামলকে ঢাকার দক্ষিণ বাড্ডা থেকে গ্রেফতার করা হয়। অপর তিন আসামি সোহেল, খোকন ও জাহিদকে ১০ নভেম্বর রাতে গ্রেফতার করা হয়।

নিউজ হান্ট/ম

সর্বশেষ