সোমবার, মে ১৬, ২০২২

সয়াবিনের বাজারে সরকারি হস্তক্ষেপ চায় না ব্যবসায়ীরা

আরও পড়ুন

সয়াবিন তেলের ঊর্ধ্বগতি দর নিয়ন্ত্রণে সরকার নানান পদক্ষেপ নিচ্ছে। তবে কিছুতেই কোন কাজ হচ্ছে না। এরই মধ্যে সরকারি পদক্ষেপ বন্ধের দাবি জানিয়েছেন ব্যবসায়ীরা।

বুধবার দেশের ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআইর ডাকে ভোজ্য তেল নিয়ে এক মতবিনিয়ম সভায় এ দাবি তোলেন তারা।

ভোজ্য তেল আমদানিকারক এই ব্যবসায়ীরা দাবি করেন, মুক্তবাজার অর্থনীতিতে বাজারে সরকারের হস্তক্ষেপ পরিস্থিতি জটিল করে তুলছে। বরং বাজারকে বাজারের উপর ছেড়ে দিলেই পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়ে আসবে।

মিল মালিক প্রতিনিধিদের মধ্যে এস আলম গ্রুপের কাজী সালাহ উদ্দিন আহমদ বাজারে হস্তক্ষেপ বন্ধের কথা উল্লেখ করে বলেন বলেন, “প্রত্যেক বছর রমজানের আগে সরকার ব্যবসায়ীদের সঙ্গে বৈঠক করে পণ্যের দাম কমানোর নির্দেশনা দেন। এই নির্দেশনার কারণে বাজারে অস্থিরতা তৈরি হয়।

“২০০৯-১০ সালেও এরকম একটা পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছিল। এর আগে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলেও এরকম হয়েছিল। কিন্তু পরে বিষয়টি ব্যবসায়ীদের উপর ছেড়ে দেওয়ায় বাজার ঠিকই নিয়ন্ত্রণে চলে আসে।”

সিটি গ্রুপের উপদেষ্টা অমিতাভ চক্রবর্তী বলেন, “ব্যবসাকে তার নিজের মতো চলতে দিতে হবে। সে তার ধারা অনুযায়ী চলবে। তাকে বাধা দিলে অস্থিরতা তৈরি হবে।

“বিশ্ববাজারে তেলের দাম বেড়েছে বলেই দেশের বাজারে বেড়েছে। এটা বাজারের উপর ছেড়ে দিতে হবে। বাজারে আস্তে আস্তে বাজার নিয়ন্ত্রণে চলে আসবে।”

এসময় তিনি বলেন, “সরকার যদি মনে করে ব্যবসায়ীরা বেশি লাভ করছে, তাহলে টিসিবির মাধ্যমে তেল আমদানি করুক। আমরা সহযোগিতা করব। এরপর সরকারই বাজারজাত করুক।”

টি কে গ্রুপের তাসলিম বলেন, “মিল মালিকরা স্বচ্ছভাবে কাজ করছে কি না, তার জন্য টিসিবির মাধ্যমে দেশের ভোজ্যতেলের চাহিদার অন্তত ২০ শতাংশ তেল আমদানি করার প্রস্তাব করছি।

“যাতে সরকার জানে যে টিসিবি কত দামে আমদানি করছে। তখন সরকার আমাদের আমদানি দরও জানতে পারবে।”

সর্বশেষ