মঙ্গলবার, ডিসেম্বর ৭, ২০২১

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় জমে উঠেছে গরম কাপড়ের বেচাকেনা

আরও পড়ুন

ব্রাহ্মণবাড়িয়া থেকে তৌহিদুর রহমান নিটল: সকালে শিশির ভেঁজা কুয়াশার চাদর আর সন্ধ্যায় কনকনে ঠান্ডা আবহাওয়াই জানান দিচ্ছে শীতের আগমনের বার্তা। বছরের এই সময়ে প্রকৃতির রুপ পরিবর্তনের সাথে দেশজুড়ে নামছে শীত। আর শীতের তীব্রতার বাড়ার সাথে সাথে শরীরকে গরম রাখার জন্য ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ফুটপাতে জমে উঠেছে গরম কাপড়ের বেচাকেনা। শীত নিবারণের জন্য নিম্ন আয়ের লোকজন ভীড় জমাচ্ছে ফুটপাতের ভ্রাম্যমাণ দোকানগুলোতে। সাধ্যের মধ্যে কিনছেন নিজের পছন্দসই কাপড়।

সরেজমিনে ঘুরে দেখা যায়, শহরের বঙ্গবন্ধু স্কয়ার, সদর হাসপাতাল রোড, কোর্ট রোড, স্টেশন রোড, জেল রোডসহ বিভিন্ন রাস্তার ফুটপাতে মৌসুমী ব্যবসায়ীরা গরম কাপড় বিক্রি করছেন। অধিকাংশ ব্যবসায়ীরা ভ্যানে করে কাপড় বিক্রি করছেন। ফুটপাতের গরম কাপড়ের মধ্যে অধিকাংশ ব্যবসায়ীরা বিক্রি করছেন দেশীয় তৈরি গার্মেন্টস ও বিদেশ থেকে আমদানী করা পুরাতন কাপড়। ছোট বাচ্চা থেকে শুরু করে সব বয়সী মানুষের কাপড় এসব স্থানে পাওয়া যাচ্ছে। দামে সস্তা ও টেকসই হওয়ায় বেচা-বিক্রি হচ্ছে বেশ ভালো।

ফুটপাতে ভ্যানগাড়ীতে কাপড় বিক্রেতা জসিম মিয়া বলেন, নভেম্বর মাসের শুরু থেকে কাপড় বিক্রি শুরু হলেও মূলত গত ৭ দিন ধরে ক্রেতাদের ভীড় বেড়েছে। বিভিন্ন ধরনের জ্যাকেট, ব্লেজার, স্যুট, সোয়েটার, জাম্পার, মাফলার, মোটা কাপড়ের শার্ট, কান টুপি, মোজা, বাচ্চাদের জ্যাকেটসহ উলের তৈরী বিভিন্ন ডিজাইনের কাপড় আমরা বিক্রি করছি।

আরেক ব্যবসায়ী ছিদ্দিক মিয়া বলেন, ঢাকা থেকে গার্মেন্টেসের রিজেক্টেড হওয়া কাপড় এনেও এখানে বিক্রি করছি। ২০০ টাকা থেকে শুরু করে ৫০০ টাকার মধ্যে এসব কাপড় বিক্রি করা হচ্ছে। তবে বিদেশ থেকে আমদানীকৃত পুরাতন ভালো মানের জ্যাকেটের দাম একটু বেশী। সকাল ৯টা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত চলে বেচা-কেনা। পুরুষের চাইতে মহিলা ক্রেতাই বেশী দেখা যায়।

ফুটপাত থেকে কাপড় কিনতে আসা গৃহিনী শেফালি বেগম বলেন, ফুটপাত থেকে গত বছরও কাপড় কিনেছি। কাপড়ের মান ভালো তাই এবছরও বাচ্চাদের জন্য কাপড় কিনতে এসেছি। সাশ্রয়ী মূল্যে ভালো কাপড় পাওয়া যায়। ফুটপাতের কাপড়ের অনেক চাহিদা। শুধু নিম্ন আয়ের লোকজনই নয়, অনেক সময় স্বচ্ছল বা বিত্তবানরাও ফুটপাত থেকে কাপড় কিনেন।

নিউজ হান্ট/এএস

সর্বশেষ