সোমবার, ডিসেম্বর ৬, ২০২১

মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় ১০ মাসে নিহত ১৭৫৮

আরও পড়ুন

চলতি বছরের জানুয়ারি থেকে অক্টোবর পর্যন্ত দেশে ১ হাজার ৬৫৩টি মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় ১ হাজার ৭৫৮ জন নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছে ১ হাজার ১২৩ জন। রোড সেফটি ফাউন্ডেশনের একটি প্রতিবেদনে এসব তথ্য উঠে এসেছে।

আজ বুধবার (১৭ নভেম্বর) ফাউন্ডেশনের নির্বাহী পরিচালক সাইদুর রহমান স্বাক্ষরিত প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গত বছরের জানুয়ারি থেকে অক্টোবর পর্যন্ত দেশে ১ হাজার ১১টি মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় ১ হাজার ২৬ জন নিহত হয়েছিল। এই হিসেবে চলতি বছরের জানুয়ারি থেকে অক্টোবর পর্যন্ত ১০ মাসে দুর্ঘটনা বেড়েছে ৬৩ দশমিক ৬০ শতাংশ ও প্রাণহানি বেড়েছে ৭১ দশমিক ৩৫ শতাংশ।

সেখানে আরো বলা হয়, নিহতদের মধ্যে ১ হাজার ৩২৭ জন (৭৫.৪৮%) ১৪ থেকে ৪৫ বছর বয়সী। দুর্ঘটনায় ৭২ জন শিক্ষক ও ৬৬৯ জন শিক্ষার্থীর মুত্যু হয়েছে। মোটরসাইকেলের ধাক্কায় ১৫১ জন পথচারী নিহত হয়েছেন, যা মোট নিহতের ৮ দশমিক ৫৮ শতাংশ।

মোটরসাইকেল দুর্ঘটনার কারণ ব্যাখ্যা করতে গিয়ে ফাউন্ডেশন বলেছে, কিশোর-যুবকদের বেপরোয়াভাবে মোটরসাইকেল চালানো এর অন্যতম কারণ। পাশাপাশি ট্রাফিক আইন না জানা ও না মানার প্রবণতা, দুর্বল ট্রাফিক ব্যবস্থাপনা, বাস-ট্রাক-পিকআপ-প্রাইভেটকার-মাইক্রোবাসসহ দ্রুতগতির যানবাহনের বেপরোয়া আচরণ, চালকদের অদক্ষতা ও অস্থিরতা, সড়ক-মহাসড়কে ডিভাইডার না থাকাও এসব দুর্ঘটনার বড় কারণ। এছাড়া সড়ক নিরাপত্তা বিষয়ে সচেতনতামূলক প্রচারণা না থাকা ও পারিবারিকভাবে সন্তানদের বেপরোয়া আচরণকে প্রশ্রয় দেয়ার কথাও কারণ হিসেবে উঠে এসেছে।

পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে কিছু সুপারিশও দিয়েছে তারা। এর মধ্যে রয়েছে-কিশোর-যুবকদের বেপরোয়া মোটরসাইকেল চালানো বন্ধে কঠোর পদক্ষেপ নেয়া; মাত্রাতিরিক্ত গতিসম্পন্ন মোটরসাইকেল উৎপাদন, বিক্রি ও ব্যবহার নিয়ন্ত্রণ; দক্ষ চালক তৈরির উদ্যোগ বৃদ্ধি; গণপরিবহন চালকদের বেতন ও কর্মঘণ্টা নির্দিষ্ট করে দেয়া; বিআরটিএর সক্ষমতা বৃদ্ধি; ট্রাফিক আইনের বাধাহীন প্রয়োগ নিশ্চিত ইত্যাদি।

নিউজ হান্ট/আরকে

সর্বশেষ