সোমবার, অক্টোবর ১৮, ২০২১

রাজবাড়ীতে পদ্মার ভাঙনে হুমকিতে শহর রক্ষা বাঁধ

আরও পড়ুন

রাজবাড়ী থেকে কাজী তানভীর মাহমুদ: রাজবাড়ীতে আবারও পদ্মার ভাঙন দেখা দিয়েছে। পদ্মার পানি কমে যাওয়ার সাথে সাথে এই নিয়ে এক সপ্তাহের ব্যবধানে নদীর ডান তীর প্রতিরক্ষা প্রকল্পে তৃতীয়বারের মতন ভাঙ্গন দেখা দিলো। ভাঙন অব্যাহত থাকায় হুমকিতে রয়েছ শহর রক্ষা বাঁধ।

সর্বশেষ গত শুক্রবার বিকেল ৪ টা থেকে রাজবাড়ী পৌর এলাকার ৯নং ওয়ার্ড এবং সদরের মিজানপুর ইউনিয়নের সিলিমপুর এলাকায় শুরু হয়েছে এই নদী ভাঙন। সন্ধ্যা গড়িয়ে রাত হলেও ভাঙন অব্যাহত থাকে। পদ্মার ভাঙনের কবলে পড়ে প্রায় ২০০ মিটার এলাকা নদীগর্ভে বিলীন হয়ে যায়।

সরেজমিনে ভাঙন এলাকায় গিয়ে দেখা যায়, বেশ কয়েকটি বসতভিটা ইতিমধ্যে নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গিয়েছে। ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে আরও ৫০-৬০ টি বসতভিটা। নদী পারের মানুষের মধ্যে বিরাজ করছে নদী ভাঙন আতঙ্ক। তাদের ব্যস্ততা এখন ঘরের আসবাবপত্র অন্যত্র সরিয়ে নেওয়ার। একই সাথে তাদের মধ্যে শোক এবং ক্ষোভ বিরাজ করছে।

পৌর এলাকার ৯ নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা আলম ব্যাপারী বলেন, আমার দীর্ঘদিনের বসতভিটা আজ নদী ভাঙনের কবলে পড়েছে। বাড়ির আসবাবপত্র দ্রুত অন্যত্র সরিয়ে নেয়া হয়েছে। ঘরটাও ভেঙ্গে নিছে কিছুটা আর বাকিটা নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গিয়েছে।

আরেক বাসিন্দা আয়নাল শিকদার বলেন, ভাঙ্গনের ফলে হুমকির মুখে পড়েছে আমার বসতভিটা। দ্রুত অন্যত্র সরিয়ে নেওয়ার ব্যবস্থা করছি। আমরা জানিনা এরপর কোথায় থাকব?কি খাবো?

একই এলাকার নাসরিন বেগম বলেন, আমার বিয়ের পর এসে দেখছি নদী অনেক দূরে ছিল। ভাঙতে ভাঙতে এখন আমাদের বসতভিটাও নদীতে চলে যাচ্ছে। আমাদের যাওয়ার আর কোন জায়গা নেই।

মিজানপুর ইউনিয়নের সিলিমপুর এলাকার বাসিন্দা শরীফ শেখ বলেন, নদীর ডান তীর রক্ষা প্রকল্পের কাজে অনিয়ম থাকায় এই ভাঙ্গনের সৃষ্টি হয়েছে। নদীর তীব্র ভাঙেন এখন শহর রক্ষা বাঁধ হুমকির মুখে রয়েছে।

পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপ বিভাগীয় প্রকৌশলী আরিফুর রহমান অঙ্কুর জানান, পদ্মায় পানি কমার সাথে সাথে সৃষ্টি হয়েছে প্রচণ্ড ঢেউয়ের। যার ফলে সিসি ব্লকের নিচের মাটি সরে সিসি ব্লক নিচ থেকে আলগা হয়ে সিসি ব্লক দেবে গিয়েছে। এই কারণে ভাঙ্গনের সৃষ্টি হয়েছে। ভাঙ্গন কবলিত স্থানে ভাঙ্গন রোধে জরুরী ভিত্তিতে বালুভর্তি জিও ব্যাগ ফেলা হচ্ছে।

নিউজ হান্ট/কেএইচ

সর্বশেষ