মঙ্গলবার, ডিসেম্বর ৭, ২০২১

রাস উৎসব: কুয়াকাটায় পুণ্যস্নানে ভক্তদের ঢল

আরও পড়ুন

পটুয়াখালী থেকে মো: জাকির হোসেন: পটুয়াখালীর কুয়াকাটা সাগর সৈকতে হাজার হাজার রাসভক্ত নরনারীর পুণ্যস্নানের মধ্য দিয়ে আজ শেষ হলো রাস উৎসবের মূল আনুষ্ঠানিকতা।

শুক্রবার (১৯ নভেম্বর) ভোর ৫.৩০টায় জাগতিক সকল পাপ মোচনের আশায় সৈকতের নোনা জলে গাঁ ভাসিয়ে এ পুণ্যস্নান সম্পন্ন করেন হিন্দুধর্মালম্বীরা।

স্নানের আগে সৈকতে মোমবাতি, আগরবাতি, বেল পাতা, ফুল, ধান, দুর্বা, হরিতকী, ডাব, কলা, তেল ও সিঁদুর সমুদ্রে জলে অর্পন করে সনাতনী নারীরা। এসময় উলুধ্বনি ও মন্ত্রোপাঠে মুখরিত হয়ে ওঠে পুরো সৈকত। এছাড়া মাথান্যাড়াসহ প্রায়শ্চিত্ত ও পিন্ডদান করেন অনেক মানতকারীরা। এর আগে রাতভর কুয়াকাট শ্রী শ্রী রাধাকৃষ্ণ মন্দিরে পূজার্চনা, সঙ্গীতানুষ্ঠান ও মহানাম কীর্তনে মেতে ওঠেন
তারা।

সৈকত আগত পর্যটকদের সার্বিক নিরাপত্তায় সচেষ্ট ছিলো বিপুল সংখ্যক আইনশৃংখলা বাহিনীর সদস্যরা।

রাসউৎসবকে ঘিরে বসেছিল যেন পুণ্যার্থীর মিলনমেলা। ভক্তরা করোনার মহমারি থেকে মুক্তির জন্যও প্রার্থনা করেন, প্রার্থনা করেন সারা বছরের পঙ্কিলতা দূর করার জন্য। হাজার হাজার রাসভক্ত পুণ্যার্থী বৃহস্পতিবার রাতভর কুয়াকাটা রাধাকৃষ্ণ মন্দির প্রাঙ্গনে ধর্মীয় অনুষ্ঠানে মিলিত হন। এ সময় তারা দর্শণ করেন রাধাকৃষ্ণের যুগল প্রতীমা।

এ দিকে রাসমেলাকে সুষ্ঠু ও সুন্দর, নিরাপদ ভাবে করতে প্রশাসনের পক্ষ থেকে বিভিন্ন কঠোর বিধি নিষেধ অরোপ করা হয়। করোনার সংক্রমণ এড়াতে স্বাস্থ্যবিধি, বিশেষ করে মাস্ক ব্যবহার নিশ্চিতে কুয়াকাটা এবং কলাপাড়ায় স্বাস্থ্যবিধি মানাতে উপজেলা প্রশাসন ও রাস পূর্ণিমার পূজা উদযাপন কমিটি বিশেষ পদক্ষেপ নেন।

কুয়াকাটায় পূণ্যস্নানে আসা পূণ্যার্থীদের জন্য সকল ধরনের নিরাপত্তায় ব্যাপক প্রশাসনিক পদক্ষেপ নেয়া হয়। প্রশাসনের কঠোর নজরদারী মাধ্যমে কোন ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা ছাড়াই সুষ্ঠু এবং উৎসবমুখর পরিবেশের মধ্য দিয়ে রাসভক্তদের পূণ্যস্নান সম্পন্ন হয়েছে ।

কলাপাড়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার আবু হাসনাত মোহাম্মদ শহিদুল হক জানান, আগত দর্শনার্থী ও পূণ্যাথীদের নিচ্ছিদ্র নিরাপত্তার জন্য আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী মন্দির এলাকায় সিসি ক্যামেরা স্থাপনসহ কয়েক স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহন করা হয়েছে। আগত রাসভক্তদের জন্য বিশুদ্ধ পানির সরবরাহ সহ স্যানিটেশন ব্যবস্থার জন্য অস্থায়ী টয়লেট স্থাপন করা হয়েছে। পূণ্যার্থীর নির্বিঘ্ন চলাচলের জন্য বাস, মোটরসাইকেলসহ সকল যানবাহন নির্দিষ্ট স্থানে পার্কিংয়ের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। কুয়াকাটার প্রবেশপথে যানবাহন চলাচলের ক্ষেত্রে বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়েছে। বঙ্গবন্ধু মাধ্যমিক বিদ্যালয় থেকে কুয়াকাটা সৈকত পর্যন্ত সড়ক সম্পূর্ণ যানবাহন চলাচল বন্ধ রাখা হয়েছে। মোটরসাইকেল, টমটম, অটোরিক্সায় অতিরিক্ত ভাড়া আদায় বন্ধে মনিটরিংয়ের ব্যবস্থা করা হয়েছে। কলাপাড়া পৌরশহরের মদন মোহন সেবাশ্রম এলাকায় রাসপূজা চলাকালীন সড়কে চলাচল ওয়ান ওয়ে রাখা হয়। আগতদের জরুরি স্বাস্থ্য সেবার জন্য ছিল মেডিকেল টিম। রাসভক্ত নারীরা পূণ্যস্নান শেষে যেন শালীনতা বজায় রেখে পোশাক পরিবর্তন করতে পারেন এজন্যও ব্যবস্থা নেয়া হয়। পূণ্যস্নানের সময় সকল ঝুঁকি এড়াতে প্রয়োজনীয় সংখ্যক উদ্ধারকারী দল ছিল। বখাটেপনা ও মাদকদ্রব্য বিক্রি ও সেবন বন্ধে ছিল একাধিক মোবাইল কোর্ট।

ইতমধ্যে কুয়াকাটা সাগর সৈকতে মদ খেয়ে মাতলামি করার দায়ে ৬ যুবককে আটক করে মহিপুর থানা পুলিশ।

মহিপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আবুল খায়ের জানান, কুয়াকাটা সাগর সৈকতে পূন্যার্থী, দর্শনার্থীসহ পর্যটকদের নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিশ্চিত করতে বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহন করা হয়েছিল, যার ফলে কোনরকম বিশৃংঙ্খলা ছাড়াই সব অনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন করা গেছে।
গতরাতে মাতলামি করার দায়ে যে ৬ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছিল আজ তাদের কোর্টে প্রেরন করা হবে বলেও জানান তিনি।

প্রতিবছরই কার্তিকের ভরা পূর্ণিমার তিথিতে হাজার হাজার রাসভক্ত কুয়াকাটায় ধর্মীয় অনুষ্ঠানে মিলিত হন। করেন সাগরে পূণ্যস্নান, ফিরে যান নিজ নিজ স্থানে, পূন্যস্নানের মাধ্যমে জাগতিক সকল পাপ মোচনের মাধ্যমে নতুন করে আবার জীবন শুরু করার আশা নিয়ে।

নিউজ হান্ট/এএস

সর্বশেষ