বুধবার, ডিসেম্বর ১, ২০২১

শিশুদের ‘স্কুইড গেম’ দেখা নিয়ে যুক্তরাজ্যে উদ্বেগ

আরও পড়ুন

বর্তমান সময়ে বিশ্বব্যাপী তুমুল আলোচিত কোরীয় সিরিজ ‘স্কুইড গেম’ প্রচার শুরুর মাস না পেরোতেই নেটফ্লিক্সের সফলতম টেলিভিশন শো হয়ে উঠেছে। তবে এবার স্কুইড গেমের জনপ্রিয়তার উল্টোপিঠে এর নেতিবাচক প্রভাব নিয়ে স্কুল শিক্ষার্থীদের অভিভাবকদের সতর্ক করেছে যুক্তরাজ্যের একটি কাউন্সিল। শিশুদের ওপর এ সিরিজের আশঙ্কাজনক প্রভাব নিয়ে সতর্ক করতে অভিভাবকদের চিঠি দিয়েছে তারা।

দক্ষিণ কোরিয়ার এ থ্রিলার সিরিজটির চরিত্রগুলো সমাজের বাস্তবতার সঙ্গে পুরোপুরি মিল। জীবনযুদ্ধে পরাজিত, ঋণে জর্জরিত ও হতাশাগ্রস্ত মানুষের গল্প নিয়ে এ থ্রিলার। বড় অংকের টাকা জিততে তাদের যোগ দিতে হয় কোরিয়ার শিশুদের জনপ্রিয় খেলা স্কুইড গেমে, কিন্তু এ খেলা বাস্তব, হারলে মৃত্যু।

সিরিজটি দেখে এখন যুক্তরাজ্যের অনেক শিশু তাদের স্কুলে স্কুইড গেম খেলা শুরু করেছে। বিষয়টি উল্লেখ করে ইংল্যান্ডের সেন্ট্রাল বেডফোর্ডশায়ার কাউন্সিল অভিভাবকদের ই-মেইল করেছে। দ্য গার্ডিয়ানের প্রথম রিপোর্ট অনুসারে অভিভাবকদের ‘সতর্ক থাকার’ পরামর্শ দেয়া হয়েছিল।

অভিভাবকদের পাঠানো ই-মেইলে আরো বলা হয়, থ্রিলার এ সিরিজটি এখন ইউটিউব ও টিকটকেও দেখা হচ্ছে। এটির জনপ্রিয়তা দেখে উৎসাহিত হয়ে এরই মধ্যে অনেক ডেভেলপার এর ভিত্তিতে মিনি গেমসও তৈরি করেছে। রোবলক্সসহ আরো অনেক গেমিং প্লাটফর্মে এগুলো খেলা যাচ্ছে।

সংগঠনের ওই ই-মেইলে আরো বলা হয়, ‘শিশুদের স্কুইড গেম দেখা উচিত নয়—এটা আমরা শক্তভাবে বলতে চাই। গেমসে গ্রাফিক আকারে নানা ধরনের সহিংসতা দেখানো হচ্ছে।’

কাউন্সিলটি বিবিসিকে জানায়, গত সপ্তাহে শিক্ষাবিষয়ক সেফগার্ডিং টিম আমাদের সতর্ক করেছে, আমাদের একটি স্কুলের কিছু শিশু খেলার মাঠে খুব আক্রমণাত্মক আচরণ করছে। তারা স্কুইড গেমের সিরিজের অনেক খেলার মাঠে অনুকরণের চেষ্টা করছে।  মনে হচ্ছে, এ শিশুরা স্কুইড গেমের ক্লিপগুলো দেখছে। রেটিং অনুসারে ১৫ বছরের নিচের কোনো শিশুর এ সিরিজ দেখার অনুমতি নেই।

তাই সতর্কতা হিসেবে অভিভাবকদের সঙ্গে এসব তথ্য শেয়ার করা হচ্ছে কাউন্সিলের পক্ষ থেকে।  একই সঙ্গে অনলাইনে তারা যেন তাদের বয়সসীমার বাইরের কনটেন্ট না দেখতে পারে সেজন্য অভিভাবকদের সতর্ক করছে কাউন্সিল।

গত ১৭ সেপ্টেম্বর নেটফ্লিক্সে প্রিমিয়ার হওয়ার পর থেকে স্কুইড গেম রীতিমতো বৈশ্বিক ঝড়ে পরিণত হয়েছে। অনেকেই বলছেন, এমন গল্প খুব একটা দেখা যায়নি। সহিংসতা কিন্তু সমাজ জীবনের ঘনিষ্ঠ চিত্রায়ণ দর্শকদের টানছে চুম্বকের মতো। মুক্তির সপ্তাহখানেকের মধ্যে ৯০টি দেশে নেটফ্লিক্সের ১ নম্বর শো হয়ে ওঠে স্কুইড গেম।

নিউজ হান্ট/ইস

সর্বশেষ