সোমবার, ডিসেম্বর ৬, ২০২১

সুদানে বিক্ষোভে গুলি, নিহত ১০

আরও পড়ুন

সুদানে অভ্যুত্থানবিরোধী বিক্ষোভে গুলি চালিয়েছে নিরাপত্তা বাহিনী। এতে এখন পর্যন্ত ১০ জন মারা গেছেন। আর আহত হয়েছেন কয়েক ডজন মানুষ।

স্থানীয় সময় বুধবার (১৭ নভেম্বর) দেশটির রাজধানী খার্তুম ও এর পার্শ্ববর্তী শহর ওরদুরমান এবং বাহরিতে এ হতাহতের ঘটনা ঘটে।

দেশটির চিকিৎসকদের স্বাধীন সংগঠন ‘সুদানিজ ডক্টরস-সিসিএসডি’ এক বিবৃতিতে এ তথ্য জানিয়েছে। সংগঠনের তথ্যমতে, বুধবার খার্তুমে দুজন, ওরদুরমানে একজন এবং বাহরিতে সাতজন বিক্ষোভকারী নিহত হয়েছেন।

সিসিএসডি বরাতে কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল-জাজিরার প্রতিবেদনে বলা হয়, বুধবার ভোর থেকে রাজধানী খার্তুম ও আশপাশের সব শহরের মোবাইল সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেয় সেনাসমর্থিত সরকার। তবে সকাল থেকেই খার্তুম, বাহরি ও ওরদুরমানের রাস্তায় নেমে আসে কয়েক হাজার মানুষ।

বিক্ষোভকারীরা অভ্যুত্থানের প্রতিবাদ জানিয়ে স্লোগান দিতে শুরু করে। তারা দ্রুত সেনা শাসনের অবসান ঘটিয়ে রাজনৈতিক সরকারের হাতে ক্ষমতা হস্তান্তরের দাবি জানাতে থাকে। এসময় তিনটি শহরে একযোগে গুলি ছুঁড়তে শুরু করে নিরাপত্তা বাহিনী।

এতে ঘটনাস্থলেই অন্তত ১০ জন মারা যান। গুলিবিদ্ধ হয় অসংখ্য বিক্ষোভকারী। তাদেরকে উদ্ধার করে স্থানীয় বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। আহতদের মধ্যে অনেকের অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানিয়েছে সিসিএসডি।

গত ২৫ অক্টোবর দেশটির শীর্ষ রাজনৈতিক নেতাদের বন্দি করে ক্ষমতা দখল করেন জেনারেল ফাত্তাহ আল-বুরহান। প্রধানমন্ত্রী আব্দাল্লাহ হামদককে গৃহবন্দি ও বেশ কয়েকজন মন্ত্রীকে গ্রেফতারের পাশাপাশি দেশব্যাপী জরুরি অবস্থা ঘোষণা করেন তিনি।

ঘটনার পরপরই সামরিক অভ্যুত্থানের প্রতিবাদে রাস্তায় নামেন সুদানের হাজার হাজার মানুষ। অরাজনৈতিক পরিস্থিতির কারণে দেশটির সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে নিন্দার ঝড় ওঠে আন্তর্জাতিক অঙ্গনেও। সুদানে গণতন্ত্র পুনঃপ্রতিষ্ঠায় সরব হয় ইউরোপীয় ইউনিয়ন, যুক্তরাষ্ট্রসহ বিভিন্ন দেশ ও সংস্থা।

সুদানে তিন দশক ধরে প্রেসিডেন্টের ক্ষমতায় ছিলেন ওমর আল-বশির। ২০১৯ সালে ওমর আল-বশিরের সরকারকে ক্ষমতাচ্যুত করে দেশটির সেনাবাহিনী। এরপর ক্ষমতা ভাগাভাগি করে দেশ পরিচালনা করছিল সামরিক বাহিনী ও বেসামরিক সরকার।

নিউজ হান্ট/ম

সর্বশেষ