শুক্রবার, অক্টোবর ২২, ২০২১

১৬ বছর পর ফাইনালের হাতছানি

আরও পড়ুন

সাফ চ্যাম্পিয়নশিপে দীর্ঘ ১৬ বছর পর ফাইনালে খেলার হাতছানি বাংলাদেশের সামনে। গ্রুপ পর্বের শেষ ম্যাচে নেপালের বিপক্ষে জয়ের বিকল্প নেই বাংলাদেশের। জিতলে ফাইনাল আর হারলে মালে থেকে দেশের ফেরার টিকিট। আজ বুধবার (১৩ অক্টোবর) মালেতে নেপালের বিপক্ষে বাংংলাদেশের ম্যচটি শুরু হবে বিকেল ৫টায়।

গ্রুপ পর্বে নিজেদের তিন ম্যাচে একটি করে জয়, ড্র এবং হার বাংলাদেশের। অন্যদিকে নেপাল নিজেদের প্রথম দুই ম্যাচে জয়ের পর ভারতের বিপক্ষে হেরে বসেছে। তাই তো শেষ ম্যাচটি নেপালের জন্যও কম গুরুত্বপূর্ণ নয়। বাংলাদেশের বিপক্ষে পা হড়কালেই ফিরতে হবে খালি হাতে। তাই তারাও অস্কার ব্রুজনের হাত ধরে বদলে যাওয়া বাংলাদেশকে নিয়ে দুঃশ্চিন্তায় কপালে ভাজ ফেলছেন।

আন্তর্জাতিক ফুটবলে নেপালের বিপক্ষে এগিয়ে বাংলাদেশই। ১৯৮৩ সাল থেকে শুরু করে চলতি বছরের মার্চ পর্যন্ত নেপালের সঙ্গে ২৪টি আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলেছে বাংলাদেশ। যার মধ্যে ১২ জয়ের বিপরীতে জামালদের হার ৮টি। বাকি চার ম্যাচ ড্র।

তবে সাফ চ্যাম্পিয়নশিপে সাতবারের লড়াইয়ের প্রথম চার ম্যাচেই নেপালকে হারিয়েছিল বাংলাদেশ। কিন্তু সর্বশেষ তিনবারের সাক্ষাতে হিমালয়ের দেশটির সঙ্গে পেরে ওঠেনি তারা। তবে পুরোনো ইতিহাস ও পরিসংখ্যান নিয়ে একটুও চিন্তিত নন বাংলাদেশের কোচ ব্রুজোন।

ম্যাচ পূর্ববর্তী সংবাদ সম্মেলনে কোচ ব্রুজোন বলেছেন, ‘এখন আমরা এমন জায়গায় দাঁড়িয়ে আছি যেখান থেকে ফাইনাল মাত্র এক পা দূরে। বাংলাদেশের সবারই চাওয়া ফাইনালে খেলা। ছেলেরা এখন পর্যন্ত দারুণ কাজ করে এসেছে। আমাদের ফুটবলের যে উন্নতি হচ্ছে তা আগামীকাল (আজ) মাঠেই প্রমাণের সুযোগ। আমার দল পূর্ণশক্তি এবং উদ্দীপনা নিয়েই নেপালের বিপক্ষে মাঠে নামবে। আশা করি তাদের হারিয়ে ফাইনালে খেলতে পারব।’

২০১৮ সালে ঢাকায় অনুষ্ঠিত সাফ চ্যাম্পিয়নশিপে নেপালের কাছে হেরে গ্রুপ পর্ব থেকে বিদায় নিয়েছিল বাংলাদেশ। এবারও শেষ ম্যাচে সেই নেপাল। তবে এবার যে কোনো মূল্যে হিমালয়ের দেশকে হারাতে চায় লাল-সবুজের দলটি।

বাংলাদেশের সাফ চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনাল খেলা হয়নি ২০০৫ সালের পর। তারও দুই বছর আগে জিতেছিল একমাত্র সাফ। বড় মঞ্চে শিরোপা ছোঁয়া হয় না দীর্ঘদিন। এবার মালদ্বীপে সেই কাজটা করার সুযোগ পায় কি না বাংলাদেশ সেটাই দেখার।

নিউজ হান্ট/ইস

সর্বশেষ